advertisement
আপনি পড়ছেন

ইনজুরির কারণে লিওনেল মেসিসহ আর্জেন্টিনার তিনজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় স্পেনের বিপক্ষে মাঠে ছিলেন না। অনিয়মিত দলটাকে রীতিমতো নাস্তানাবুদ করে ছেড়েছে স্পেন। মাদ্রিদ মহারণে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের ৬-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে স্বাগতিকরা।

barcelona head coach ernesto valverde

গোলবন্যার এই জয়ের পর থেকে ভূয়সী প্রশংসা পাচ্ছে স্পেন। তবে শিষ্যদের পা মাটিতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন লা রেজাদের কোচ হুলেন লোপেতেগুই। বার্সেলোনা কোচ এরনেস্তো ভালভার্দে তো দাপুটে এই জয়টার অশনি সংকেতও দেখতে পারছেন। প্রীতি ম্যাচের ফলটা ভবিষ্যতে স্পেনকে বিপদে ফেলতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বার্সা কোচ। তিনি মনে করছেন গোলবন্যার জয় স্পেনের বিশ্বকাপ স্বপ্নে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে জয়ের পর টানা ১৮ ম্যাচ ধরে অজেয় থাকার গৌরবটা ধরে রেখেছে স্পেন। কিন্তু এই জয় থেকে আশার খুব বেশি প্রতিফলন দেখছেন না বার্সা কোচ। ভালভার্দের কাছে জয়টা অন্যসব সাধারণ ম্যাচের ফলের মতোই। তিনি বলেছেন, ‘আমরা শুধু ভাবতে পারি এটা একটা জয়। ৬-১ শুধু একটা সংখ্যা। কিন্তু অতিমাত্রার আত্মবিশ্বাসের কারণে এটা স্পেনের জন্য বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে।’

মাদ্রিদের ভুতুড়ে ম্যাচটা থেকে দুই দলের জন্য পাওয়া না পাওয়ার কিছু দেখছেন না বার্সা কোচ। স্পেনকে সতর্ক করে তিনি বলেছেন, ‘ওরা (আর্জেন্টিনা) একটা প্রীতি ম্যাচ হেরেছে। এটার অর্থ অন্য কিছু নয়। কারণ এখনো বিশ্বকাপ শুরু হয়নি। এখানে স্পেন কিছু (শিরোপা) জেতেনি কিংবা আর্জেন্টিনাও কিছু হারায়নি।’

ঘরের মাঠ ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে ৭৪ মিনিটে ৬-১ গোলে এগিয়ে স্পেন। কিন্তু গোলবন্যার ম্যাচটা শেষ হয়েছে অপ্রীতিকরভাবে। ম্যাচের শেষ দিকে দুর্দান্ত লড়াই করলেও স্প্যানিয়ার্ডদের কয়েকবার অনর্থক ট্যাকল করেছেন আর্জেন্টাইনরা। এ নিয়ে ম্যাচের শেষ দিকে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েন দুই দলের ফুটবলাররা।

পরিস্থিতি যেন আরো কঠিন রূপ না নেয় তাই ম্যাচটা দ্রুত শেষ করার জন্য রেফারিকে অনুরোধ জানান স্পেন কোচ লোপেতেগুই। তার অনুরোধের কারণে দ্বিতীয়ার্ধে অতিরিক্ত কয়েক মিনিটের খেলা হয়নি। ঘড়ির কাঁটা ৯০ মিনিট ছুঁতেই শেষ বাঁশি বাজিয়ে দেন রেফারি।

যদিও এই মুহূর্তটার জন্য প্রস্তুত ছিলেন না বার্সেলোনা কোচ ভালভার্দে। তবে ম্যাচটা ঠিকঠাক শেষ হওয়ার কারণে সেই আক্ষেপটা দূর হয়েছে তার। ম্যাচটা ইনজুরি টাইমে না নেওয়ায় রেফারির প্রশংসাও করেছেন করেছেন ভালভার্দে।