advertisement
আপনি পড়ছেন

জার্মান ক্ল্যাসিকো উত্তাপ হারিয়েছে অনেক আগেই। কারণ জার্মান ফুটবলের অভিজাত দুই ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখ ও বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের লড়াইটা আগের মতো উত্তেজনার রেণু ছড়ায় না। দ্বৈরথটা কেন আর ফুটবলপ্রেমীদের টানে না শনিবার সেটা আরো একবার বুঝিয়ে দিলো বায়ার্ন মিউনিখ।

robert lewandowski celebrates his goal

এদিন ডর্টমুন্ডকে ডেকে এনে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বাভারিয়ান ক্লাবটি। দলের ছয় গোলের তিনটিই করেছেন রবার্ট লেভানডফস্কি। ম্যাচের গোলবন্যার শুরু এবং শেষ দুটোই করেছেন পোলিশ এই স্ট্রাইকার।

ঘরের মাঠ অ্যালিয়েঞ্জ এরিনায় এনিয়ে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে হ্যাটট্রিক করলেন লেভা। তার তিন গোলের ফাঁকে বায়ার্নের হয়ে বাকি তিনটি নিশানাভেদ করেছেন জেমস রদ্রিগেজ, টমাস মুলার ও ‘ফ্রেঞ্চ ফুটবলের অলংকার’ খ্যাত বিলাল ফ্র্যাঙ্ক রিবেরি।

রাজসিক এই জয়ের ফলে জার্মান বুন্দেসলিগার শিরোপা হাতছোঁয়া দূরত্বে নিয়ে এসেছে ইয়ুপ হেইঙ্কেসের বায়ার্ন মিউনিখ। লিগে ২৮ ম্যাচে ৬৯ পয়েন্ট বাভারিয়ান জায়ান্টদের, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শালকে জিরো ফোরের সঙ্গে তাদের দূরত্ব ১৭ পয়েন্টের।

আগামী সপ্তাহে পরের ম্যাচে ড্র করলেই জার্মান লিগে টানা ষষ্ঠ শিরোপা নিশ্চিত হয়ে যাবে বায়ার্ন মিউনিখের। কারণ দুইয়ে থাকা শালকে গোলগড়েও বায়ার্নের চেয়ে যোজন যোজন পিছিয়ে আছে।

জার্মান ক্লাসিকোর আগের দুটো ম্যাচ জিততেও বেগ পেতে হয়নি বাভারিয়ানদের। তাই বলে চিরশত্রু ডর্টমুন্ডকে এভাবে গোলবন্যায় ভাসায়নি বায়ার্ন। শনিবার ম্যাচের শুরুতেই অতিথিদের ওপর সর্বস্ব নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন হেইঙ্কেসের শিষ্যরা। ২৩ মিনিটে তিন গোল করা বায়ার্ন প্রথমার্ধেই এগিয়ে যায় ৫-০ গোলে!

বুন্দেসলিগায় গত চল্লিশ বছরে বিরতির আগে এতোগুলো গোল হজম করেনি বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। ১৯৭৮ সালে শেষবার প্রথমার্ধে পাঁচ গোল হজম করেছিল সিগনাল ইদুনা পার্কের দলটি। চার দশক আগে সেই ম্যাচে মনচেনগ্লাডব্যাচ ডর্টমুন্ডকে ১২ গোলের মালা পড়িয়েছিল।

কিন্তু শনিবার রাতে বায়ার্ন অতটা নির্দয় হয়ে উঠতে পারেনি। দ্বিতীয়ার্ধে তারা গোল করেছে মাত্র একটি। ৮৭ মিনিটে অতিথিদের জালে শেষ বলটি পাঠিয়েছেন লেভানডফস্কি।