advertisement
আপনি পড়ছেন

না পারেনি, আর্সেনাল কোন দুর্ঘটনাই ঘটাতে পারেনি। বরং দুর্দান্ত খেলে 'এমএসএন' ত্রয়ীর গোলে ঘরের মাঠ কাম্প নউতে আর্সেনালের বিরুদ্ধে ৩-১ ব্যবধানে জয় পেয়েছে বার্সেলোনা। এ জয়ের ফলে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনালে উঠেছে বার্সা। আর সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা ৩৮ ম্যাচ অপরাজিত দলটি এবারও ট্রেবল জয়ের অসাধারণ কীর্তি গড়ার পথেই আছে।

messi suyarej neymar

বার্সার পক্ষে গোল করেছেন মেসি-সুয়ারেজ-নেইমার। অন্যদিকে আর্সেনালের একমাত্র গোলটি করেছেন মিশরের মিডফিল্ডার মোহামেদ এলনেনি। প্রথম লেগে আর্সেনালের মাঠে ২-০ গোলে জিতেছিল লুইস এনরিকের বার্সা। ফিরতি লেগে জিতে দুই লেগ মিলিয়ে ৫-১ ব্যবধানের বড় জয় পেয়েছে মেসিরা।

তবে বুধবার রাতে প্রথম লেগের ব্যবধান কমাতে খেলার শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল উপহার দেয় আর্সেনাল। তবে ম্যাচর ১৮তম মিনিটে গোল করে বসেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। তারপর প্রাণপণে লড়ে যান আর্সেন ভেঙ্গারের শিষ্যরা।

লুইস সুয়ারেসের পাসে ডি-বক্সের ভেতরে বল পেয়ে গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন নেইমার। ৩০তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ পেয়েছিলেন নেইমার। তবে বাঁধা হয়ে দাঁড়ান গোলরক্ষক।

তবে পুরো ম্যাচেই একক নৈপূন্য প্রদর্শন করেন আলেক্সিস সানচেস। ৪০তম মিনিটে দুর্দান্ত এক হেডের প্রচেষ্টাও ব্যর্থ হয়ে যায়। বিরতির পরপরই ষষ্ঠ মিনিটে দুর্দান্ত গোল করে দুর্দান্তভাবে খেলায় ফেরে আর্সেনাল। ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে জোরাল শটে বল জালে পাঠিয়ে দেন মিশরের মিডফিল্ডার এলনেনি।

আর্সেনালের স্বপ্নে পানি ঢেলে ৬৫তম মিনিটে দানি আলভেসের ক্রসে সিজার কিকে গোল করেন উরুগুয়ের ফরোয়ার্ড লুইস সুয়ারেজ। আর্সেনাল অবশ্য আক্রমণ চালাতেই থাকে। ড্যানি ওয়েলবেকের শট পোস্টে লাগার পর সানচেসের ফ্রি-কিক টের স্টেগেন ফিরিয়ে দিলে হতাশ হয় কাম্প নউতে যাওয়া ৫ হাজার আর্সেনাল সমর্থক।

যারা ভেবেছিলেন খেলার নান্দনিকতা শেষ তাদের জন্য শেষ চমক মেসির গোল। নির্ধারিত সময়ের দুই মিনিট আগে দর্শনীয় একটি গোল করেন লিওনেল মেসি। ডি-বক্সের ভেতর দুই ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে সুনিপূন টোকায় গোলরক্ষক দাভিদ অসপিনার মাথার উপর দিয়ে জালে বল ফুটবল জাদুকর।

বার্সেলোনার সঙ্গে পরাজয়ের মাধ্যমে টানা ৬ বার শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিল আর্সেনাল।

 

আপনি আরো পড়তে পারেন

মেসি ইতিহাস সেরা নন?

ফিরলেন মেসি, জিততে হবে শেষ দুটি ম্যাচ

জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়কসহ ৪ খেলোয়াড় বহিস্কার