advertisement
আপনি দেখছেন

গত কয়েক মৌসুমে জার্মান বুন্দেসলিগা হেঁটেছে গতানুগতিক পথে। এই মৌসুমে অবশ্য পাল্টে গেছে দৃশ্যপট। লিগে শ্বাসরুদ্ধকর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। লিগ কতটা জমজমাট সেটা বোঝাতে একটা তথ্যই যথেষ্ট। তা হলো, কাল রাতে বায়ার্ন মিউনিখ মাঠে নামার আগে শীর্ষ পাঁচ দলের সর্বোচ্চ পয়েন্ট ব্যবধান ছিল পাঁচ!

bayern goal celebration

জার্মান লিগের চলমান আসরের শীর্ষস্থান যেন মিউজিকাল চেয়ার হয়েই উঠল! কথাটা অমূলক নয়। এই মৌসুমে বুন্দেসলিগা শীর্ষে দেখেছে বেশ কয়েকটি দলকে। শনিবার যেমন শীর্ষে ছিল লাইপজিগ। রোববার তাদের টপকে আবার শীর্ষে ফিরেছে বায়ার্ন মিউনিখ। এদিন কোলনকে ৪-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে বাভারিয়ানরা।

ম্যাচটা শুরুর ১২ মিনিটেই নির্ধারণ করে ফেলেছে বায়ার্ন মিউনিখ। এই সময়ে স্বাগতিক কোলনের জালে তিনবার বল পাঠায় তারা। তিন মিনিটে বায়ার্নের হয়ে প্রথম গোলটি করেন রবার্ট লেভানডফস্কি। লিগে ২২ ম্যাচে ২৩ গোল হলো পোলিস স্ট্রাইকারের। প্রথম ২২ ম্যাচে এতগুলো গোল কেবল একজনই করতে পেরেছেন।

তিনি জার্ড মুলার। একবার দুবার নয়, জার্মান লিগে তিনবার লিগ শুরুর ২২ ম্যাচে অন্তত ২৩ গোল করেছেন বাভারিয়ানদের জার্মান কিংবদন্তি। কাল মুলারের পাশে নাম লেখালেন লেভানডফস্কি। তার নিশানাভেদের দুই মিনিটের মধ্যে কিংসলে কোমান বায়ার্নের হয়ে দ্বিতীয় গোল করেন। ১২ মিনিটে স্কোর লাইন ৩-০ হয় সার্জি জিন্যাব্রির প্রথম গোলে।

বাভারিয়ানদের শেষ গোলটিও করেছেন জিন্যাব্রি। চার গোল হজমের পর ঘুম ভাঙে কোলনের। ৭০ মিনিটে বায়ার্নকে একটি গোল ফিরিয়ে দেয় তারা। তাতে অবশ্য বাভারিয়ানদের জয়োৎসবের ঘাটতি হয়নি। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা ছয় ম্যাচ অজেয় থাকল হ্যান্স ফ্লিকের দল।

দাপুটে এই জয়ের ফলে শীর্ষে ফিরল বায়ার্ন মিউনিখ। ২২ ম্যাচে ৪৬ তাদের। সমান ম্যাচে এক পয়েন্ট পিছিয়ে দুইয়ে নেমে গেছে লাইপজিগ। ৪৫ পয়েন্ট তাদের। তিনে বরুসিয়া ডর্টমুন্ড ও চারে থাকা বরুসিয়া মনচেনগ্লাডব্যাচ দুই দলেরই পয়েন্ট সমান ৪২। দ্বিতীয় দলটি অবশ্য এক ম্যাচ কম খেলেছে। ৪০ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে থাকল বায়ার লেভারকুজেন।

sheikh mujib 2020