advertisement
আপনি দেখছেন

অনেকদিন ধরেই সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করছেন নেইমার। তাদের দেখভালের জন্য নিজের নামে একটি ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছেন এই প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি) তারকা। ব্রাজিলের প্রেইয়া গ্রান্দে এলাকায় অবস্থিত প্রতিষ্ঠানটি তিন হাজার অসহায় এবং দুস্থ শিশুর সেবায় নিয়োজিত।

neymar employeeনেইমার

তবে করোনাকালে আর্থিক সঙ্কটে বন্ধ আছে প্রতিষ্ঠানটি। ইনস্টিটিউটের কার্যক্রম বন্ধ হলেও চাকরি হারাননি কোনো কর্মী। করোনার অজুহাতে কারো এক শতাংশ বেতন-ভাতাও কর্তন কিংবা বন্ধ করা হয়নি। প্রতিষ্ঠানের ১৪২ জন কর্মী আগের মতোই সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন।

বেতন-ভাতার সঙ্গে কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টিও দেখভাল করা হচ্ছে প্রতিষ্ঠানের তরফ থেকে। আর এসব হচ্ছে নেইমারের বদান্যতায়। সব দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন সময়ের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার।

এজন্য প্রতি মাসে প্রায় ৯০ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৯১ লাখ টাকা) গুনতে হচ্ছে নেইমারের। করোনা মহামারি যত দিন চলবে, এই মহৎ কর্ম ততদিন চালিয়ে যাবেন সাবেক বার্সা খেলোয়াড়। নেইমারের মুখপাত্র এবং বাবা নেইমার সিনিয়র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলছেন, ‘আমি এবং আমার পরিবার পুরো বিষয়টি সামাল দিচ্ছি। এখানকার ১৪২ জন কর্মীর সবাই তাদের বেতন এবং অন্যান্য সুবিধাদি শতভাগ পাচ্ছে। আমরা নিজেদের অর্থ থেকে এর ব্যবস্থা করেছি। এই প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের এসব নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। এটা আমরা দেখছি। যত দিন এই মহামারি চলবে, তত দিনই দেখব।’