advertisement
আপনি দেখছেন

ম্যানচেস্টার সিটিতে প্রায় তিন মৌসুম ধরে আগুন ঝরাচ্ছেন আইমেরিক লাপোর্তা। খেলেছেন ফ্রান্স যুবদলে। অপেক্ষা করছিলেন আন্তর্জাতিক ফুটবল অভিষেকের। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, কুড়ি বছর বয়সী এই ডিফেন্ডারের জাতীয় দলে অভিষেক হবে কোন দেশের জার্সিতে? ফ্রান্স নাকি স্পেনের হয়ে খেলবেন তিনি?

aymeric laporte manchester city 2020 21

উত্তরটা জানিয়ে দিল ফুটবল বিষয়ক ওয়েবসাইট গোলডটকম। বুধবার রাতে এক প্রতিবেদনে তারা জানিয়েছে, স্পেনের হয়ে খেলবেন তিনি। খুব সম্ভবত ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপেই লাল জার্সিতে অভিষেক হবে তার। এক্ষেত্রে কিছু প্রক্রিয়ার মধ্যে যেতে হচ্ছে লাপোর্তা ও স্পেনকে। ইতোমধ্যে প্রক্রিয়া শুরু করেছে স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশন।

প্রক্রিয়ার প্রথম ধাপে লাপোর্তাকে নাগরিকত্ব দিয়েছে স্পেন সরকার। একই সঙ্গে ফিফার কাছ থেকে অনুমোদন চেয়ে প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্রাদি জমা দিয়েছে লা রোজারা। এখন ফিফা অনুমতি দিলেই ইউরোতে স্পেনের হয়ে অংশ নিতে পারবেন লাপোর্তা। যিনি ফ্রান্সের বয়সভিত্তিক বিভিন্ন দলের হয়ে ৫১টি ম্যাচ খেলেছেন।

২৬ বছর বয়সী লাপোর্তার জন্ম ফ্রান্সের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশের শহর এজেন-এ। তবে ক্লাব ক্যারিয়ারে কখনো ফ্রান্সে খেলেননি তিনি। ফুটবলে তার হাতেখড়ি হয় স্পেনের অখ্যাত ক্লাব দল সিডি বাস্কোনিয়ার হয়ে। ২০১২ সালে ১৬ বছর বয়সে তিনি যোগ দেন অ্যাথলেটিক বিলবাওতে। এখানে অর্ধ যুগ কাটিয়ে তিনি পাড়ি জমান ইংলিশ ফুটবলে; নাম লেখান ম্যানচেস্টার সিটিতে।

ভারানে-উমতিতির মতো তারকা ডিফেন্ডারদের ভিড়ে লাপোর্তার ঠাঁই হয়নি ফ্রান্স জাতীয় দলে। তাই বলে কি আন্তর্জাতিক ফুটবল স্বপ্নটা অধরা থেকে যাবে? তার স্বপ্নপূরণে এগিয়ে আসে স্পেন। গেল বুধবার দেশটির নাগরিকত্ব পান তিনি। সবকিছু ঠিক থাকলে এ বছর ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে স্পেনের জার্সিতে অভিষেক হবে তার।

লাপোর্তার অবস্থা ঠিক ডিয়েগো কস্টার মতো। যিনি নেইমার-ফ্রেড-অস্কারদের কারণে জায়গা পাননি ব্রাজিল জাতীয় দলে। পরে স্পেন সরকারের নাগরিকত্ব নিয়ে সেখানকার জাতীয় দলে খেলেন এই স্ট্রাইকার। যদিও এর খুব একটা সুফল পায়নি লা রোজারা। এখন লাপোর্তাকে দিয়ে সুফল পাবে তো স্পেন? উত্তরটা তোলা থাকল ভবিষ্যতের জন্য।