advertisement
আপনি দেখছেন

এক দশকের জন্য হারিয়ে গিয়েছিল রাশিয়া। ২০১৮ বিশ্বকাপে গা ঝাড়া দিয়ে উঠেছে দলটি। পৌঁছেছে কোয়ার্টার ফাইনালে। তাতে জাতীয় দলের প্রতি আস্থা ফিরেছে দেশটির গণমানুষের। আক্রমণাত্মক মেজাজি ফুটবল তাদের আলাদাভাবে নজরে এনেছে। খুব স্বাভাবিকভাবেই এবারের ইউরোতে বিশ্বকাপের ছন্দটা বয়ে আনতে চায় তারা।

russia football team 2021রাশিয়া ফুটবল দল

ইউরোর মূলপর্বে জায়গা করে নিতে বেগ পেতে হয়নি রাশিয়াকে। কারণ বাছাইপর্বে তুলনামূলক কিছুটা সহজ গ্রুপে পড়েছে তারা। তবে দলটার শক্তিমত্তা এই মুহূর্তে অনেকটাই কমে গেছে। সাম্প্রতিককালে সময়টা ভালো যাচ্ছে না তাদের। নেশনস লিগে সার্বিয়ার কাছে ৫-০ গোলে চূর্ণ হয়েছে। পরে ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে স্লোভাকিয়ার কাছে হারতে হয়েছে তাদের। এবারের টুর্নামেন্ট তাই রাশানদের জন্য নিজেদের ফিরে পাওয়ার।

প্রধান কোচ- স্ট্যানিসলাভ চের্চেসভ: কোচ হিসেবে একটু অন্যরকম চের্চেসভ। ২০১৮ বিশ্বকাপের আগ মুহূর্তে রাশিয়ার প্রধান কোচ হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। ওই সময় মোটামুটি অখ্যাতই ছিলেন এই কোচ। পরে বড় মঞ্চে নিজের জাত চিনিয়েছেন। দলকে নিয়ে গেছেন শেষ আটে। তার প্রতি মানুষের ধারণাও বদলে গেছে তাতে। তিন বছর পর তাকে নিয়ে চলছে তুমুল মুণ্ডুপাত।

euro 2020 logo

চের্চেসভকে সরিয়ে দেওয়ার দাবিও তুলেছিলেন কেউ কেউ। দলের সাম্প্রতিক ব্যর্থতার দায় অবশ্য একা নিতে নারাজ তিনি। সংবাদ সম্মেলনে এসে কিছু খেলোয়াড়ের সমালোচনা করেছেন চের্চেসভ। রাশিয়াতে মধুচন্দ্রিমা কেটে গেছে তার। দলের তারকা খেলোয়াড়দের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন। সবমিলিয়ে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছে রাশিয়ার ড্রেসিংরুমের আবহ। এবারের ইউরোটা তাই চের্চেসভের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জের।

প্রধান অস্ত্র - মারিও ফার্নান্দেজ: গত বিশ্বকাপের পর অবসরে চলে গেছেন গোলরক্ষক ইগর আকিনফিভ। এই মুহূর্তে রাশিয়া দলের একমাত্র বিশ্বমানের ফুটবলার বলতে ব্রাজিলিয়ান বংশোদ্ভূত ফার্নান্দেজ। এবারের ইউরোতে রাশানদের তুরুপের তাস তিনিই। ফার্নান্দেজের বিশেষ গুণ ক্লান্তি স্পর্শ করতে পারে না তাকে, যা গত কয়েক বছর ধরে দেখিয়ে যাচ্ছেন তিনি। গত বিশ্বকাপে ফার্নান্দেজ ছিলেন রাশানদের সেরা পারফর্মার।

তরুণ তুর্কি - ডেনিস মাকারভ: এবারের ইউরো দলে রাশানদের দলে সবচেয়ে বড় চমকের নাম মাকারভ। রুবিন কাজানে বিদায়ী মৌসুমে আগুন ঝরিয়ে স্বপ্নের দলে ঢুকে পড়েছেন ২৩ বছর বয়সী এই তারকা। তাকে নিজ হাতে গড়ে তুলেছেন রাশিয়ার সাবেক ও কাজানের বর্তমান কোচ লিওনিড স্লাটসকি।

গোল করতে এবং করাতে সমানভাবে পারদর্শী মাকারাভ। রাশান লিগের সবশেষ মৌসুমে নয় গোল করেছেন তিনি। সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন পাঁচটি। বেঞ্চ ছেড়ে উঠে এসে ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণে চের্চেসভের অন্যতম অস্ত্র হতে পারেন এই ফরওয়ার্ড। তাকে শুরুর একাদশে রাখলেও সেটা বিস্ময়কর কিছু হবে না।

গ্রুপপর্ব: রাশিয়ার সাম্প্রতিক যা পারফরম্যান্স তাতে করে গ্রুপপর্বে বাধা ডিঙানো তাদের পক্ষে কঠিন হতে পারে। গ্রুপপর্বে তারা মুখোমুখি হবে টুর্নামেন্টের হট ফেভারিট বেলজিয়ামের। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা ডেনমার্কের কাছেও অগ্নিপরীক্ষা দিতে হবে রাশানদের। নবাগত ফিনল্যান্ডকেও তাদের দুর্বল ভাবলে চলবে না। রাশিয়ার জন্য স্বস্তি হচ্ছে, গ্রুপপর্বের প্রথম দুটি ম্যাচ তারা খেলবে ঘরের মাঠ সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে।

সম্ভাব্য একাদশ: গোলরক্ষক: শুনিন; ডিফেন্ডার: ফার্নান্দেজ, ডিঝিকিয়া, সেমিওনভ; ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার: জবনিন, ওজডোয়েভ; মিডফিল্ডার: কুজায়েভ, গোলোভিন, আলেক্সে মিরানচুক; ফরওয়ার্ড: ডিজুবা

সেরা সাফল্য: চ্যাম্পিয়ন (১৯৬০; সোভিয়েত ইউনিয়ন হিসেবে); সেমিফাইনাল (২০০৮; রাশিয়া হিসেবে)

ফিফা র‌্যাংকিং: ৩৮

রাশিয়া ম্যাচসূচি:

১২ জুন: রাশিয়া-বেলজিয়াম (সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম; সেন্ট পিটার্সবার্গ)
১৬ জুন: রাশিয়া-ফিনল্যান্ড (সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম; সেন্ট পিটার্সবার্গ)
২১ জুন: ডেনমার্ক-রাশিয়া (পার্কেন স্টেডিয়াম; কোপেনহেগেন)