advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে গত বছর দেওয়া হয়নি ব্যালন ডি'অর। এ বছর ফিরছে ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকীর বর্ষসেরার লড়াই। দৌড়ে আছেন বেশ কয়েকজনই। এদের মধ্য থেকে ফেভারিট খুঁজে নেওয়া কঠিন। লিওনেল মেসি, জর্জিনহো, ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, নিকোলো বারেল্লা, রবার্ট লেভানডফস্কি- নামগুলো বেশি উচ্চারিত হচ্ছে।

karim benzema ballon d orকরিম বেনজেমা

কিন্তু ২০২১ ব্যালন ডি'অর হিসেবে এদের একজনকেও পছন্দ নয় রোনালদো 'দ্য ফেনমেননে'র। সেরার দৌড়ে ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি এগিয়ে রাখছেন রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনজেমাকে। সেটা অবশ্য দলীয় সাফল্য বিবেচনায় নয়, ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সকে মানদণ্ড হিসেবে দেখছেন তিনি।

শিরোপা খরায় গত মৌসুম শেষ করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। তবে ব্যক্তিগত নৈপুণ্যে বেনজেমা ছিলেন দুর্দান্ত। তার দারুণ পারফরম্যান্সে স্প্যানিশ লা লিগার শেষ রাউন্ড পর্যন্ত লড়াইয়ে ছিল লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। যদিও রিয়াল-বার্সাকে টেক্কা দিয়ে স্প্যানিশ লিগের হারানো রাজত্ব উদ্ধার করেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

ronaldo nazario along with karim benzemaকরিম বেনজেমার সঙ্গে রোনালদো

গেল শুক্রবার ব্যালন ডি'অরের ৩০ সদস্যের প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করেছে কর্তৃপক্ষ। যেখানে সাম্প্রতিক বছরের পরিচিত মুখগুলোই বেশি। যথারীতি বেনজেমাও আছেন এই তালিকায়। কিন্তু সেরা তিনে তার থাকাটা প্রায় অসম্ভব। কারণ ক্লাব ফুটবল এবং জাতীয় দল কোথাও কোনো শিরোপা পাননি বেনজেমা।

পাননি বলতে বর্ষসেরার লড়াইয়ের জন্য যে সময়টা নির্ধারিত ছিল তখনকার কথাই বলা হচ্ছে। সম্প্রতি অবশ্য উয়েফা নেশনস লিগের শিরোপা জিতেছে বেনজেমার দেশ ফ্রান্স। এই সাফল্য বিবেচনায় নিলেও ফরাসি স্ট্রাইকারের সেরা হওয়ার কোনো কারণ দেখছেন না ফুটবল বিশ্লেষকরা। রোনালদো অবশ্য সেই দলের লোক নন।

বেনজেমাকেই ব্যালন ডি'অরের উপযুক্ত হিসেবে মনে করছেন রোনালদো। বৃহস্পতিবার ফেসবুকে বেনজেমার সঙ্গে একটি ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে ব্রাজিল ও রিয়াল কিংবদন্তি লিখেছেন, 'নিঃসন্দেহে আমার চোখে বেনজেমাই ব্যালন ডি'অরের উপযুক্ত। গেল দশ বছরে ও সর্বোচ্চ পর্যায়ের পারফর্ম করেছে এবং সবকিছুই জিতেছে।'

গত মৌসুমে লা লিগার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা ছিলেন বেনজেমা। ২৩ গোল করা ফরাসি স্ট্রাইকার অ্যাসিস্ট করেছিলেন নয়টি। অভিজ্ঞ এই স্ট্রাইকার এই মৌসুমে ফিরেছেন আরো ভয়ংকর হয়ে। ইতোমধ্যে আট ম্যাচে নয় গোল ও সাতটি অ্যাসিস্ট করেছেন তিনি। ক্লাব পর্যায়ে ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের সুবাদে পাঁচ বছর পর গেল মে'তে ফ্রান্স দলে ফেরানো হয় বেনজেমাকে।

কিন্তু ফেরার টুর্নামেন্ট ইউরোতে নক আউট পর্বেই বাদ পড়ে বেনজেমার ফ্রান্স। দলের ব্যর্থতার মিশনে উজ্জ্বল ছিলেন ৩৩ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার; করেন চার গোল। ফ্রান্সের সেই হতাশা কদিন আগেই কেটে গেছে। প্রথমবারের মতো উয়েফা নেশনস লিগ শিরোপা জেতে ফরাসিরা। সেমিফাইনাল ও ফাইনালে গোল করে ফ্রান্সের চ্যাম্পিয়নশিপে মূখ্য অবদান রাখেন বেনজেমা।

রিয়াল মাদ্রিদে অনেক বছর ধরেই আছেন বেনজেমা। কিন্তু সতীর্থ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ছায়া হয়েই খেলতে হয়েছে তাকে। পর্তুগিজ সেনসেশন রিয়াল ছাড়ার পর বিশ্বের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন বেনজেমা। প্রায় সাড়ে তিন মৌসুম ধরে একাই রিয়াল মাদ্রিদের ঘানি টানছেন তিনি।

ক্লাব ক্যারিয়ারে সম্ভাব্য সবকিছু জেতা বেনজেমা এখনো ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ পুরস্কারটা পাননি। ২০০২ বিশ্বজয়ী রোনালদোর মতে কোনো কারণে এ বছর না হলেও পরের বার ঠিকই ব্যালন ডি'অর উঠবে বেনজেমার হাতে। রিয়াল মাদ্রিদ ফরওয়ার্ড যেভাবে পারফর্ম করে চলেছেন সেটা অব্যাহত থাকলে পরের বার ঠিকই সম্ভাবনা থাকবে তার।