advertisement
আপনি পড়ছেন

বর্ষসেরা ফুটবলার নির্ধারণে এবার বেশকিছু নিয়মে পরিবর্তন এনেছে ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকী। নতুন নিয়মে ব্যালন ডি’অর প্রদানে দলীয় সাফল্যের চেয়ে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সকেই জোর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। আরেকটি বড় পরিবর্তন হচ্ছে- বছরব্যাপী নয়, পারফরম্যান্স হিসেব করা হবে মৌসুমভিত্তিক।

neymar messi ronaldo 1নেইমার-মেসি-রোনালদো

অর্থাৎ আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপের কোনো প্রভাব পড়বে না এবারের ব্যালন ডি’অর নির্ধারণে। ফলে এই মৌসুমের পারফরম্যান্সের নিরিখে অনুমান করা সহজ হবে বিজয়ীর নাম। সেই হিসেবে মঙ্গলবার রাতে ব্যালন ডি’অর পাওয়ার র‌্যাঙ্কিং প্রকাশ করেছে ফুটবল বিষয়ক ওয়েবসাইট গোলডটকম।

তাদের প্রকাশিত তালিকার সেরা বিশেও জায়গা হয়নি যৌথভাবে ১২টি ব্যালন ডি’অর জেতা লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। সবশেষ হালনাগাদ করা এই তালিকার সেরা ২০ থেকে ছিটকে গেছেন রোনালদো, এডোয়ার্ড মেন্ডি, দুসান ব্লাহোভিচ ও সেবাস্টেইন হেলার। সময়ের আরেক তারকা নেইমার জুনিয়রের তো নাম গন্ধই নেই।

benzema goal celebrationsবেনজেমা

কীসের মানদণ্ডে প্রচারমাধ্যমটি ব্যালন ডি’অর পাওয়ার র‌্যাঙ্কিং তালিকা প্রকাশ করেছে সেটাও পরিষ্কার করেছে তারা। এই তালিকায় বায়ার্ন মিউনিখের পোলিস স্ট্রাইকার রবার্ট লেভাডফস্কিকে টপকে শীর্ষে উঠে এসেছেন রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি ফরওয়ার্ড করিম বেনজেমা। একনজরে দেখে নেওয়া যাক ব্যালন ডি’অরের দৌড়ে কার অবস্থান কোথায়:

২০: আর্লিং হাল্যান্ড (বরুসিয়া ডর্টমুন্ড); ৩১ গোল, ৮ অ্যাসিস্ট।
১৯. পেদ্রি (বার্সেলোনা); ৫ গোল, ১ অ্যাসিস্ট।
১৮. সন হিয়ুং-মিন (টটেনহাম হটস্পার); ২২ গোল, ৮ অ্যাসিস্ট।
১৭. হ্যারি কেন (টটেনহাম হটস্পার); ৩৩ গোল, ১০ অ্যাসিস্ট।
১৬. টমাস মুলার (বায়ার্ন মিউনিখ); ১৬ গোল, ২৫ অ্যাসিস্ট।

১৫. ক্রিস্টোফার এনকুঙ্কু (লাইপজিগ); ২৮ গোল, ১৮ অ্যাসিস্ট।
১৪. রিয়াদ মাহরেজ (ম্যানচেস্টার সিটি); ২৭ গোল, ৯ অ্যাসিস্ট।
১৩. হোয়াও ক্যানসেলো (ম্যানচেস্টার সিটি); ৩ গোল; ১০ অ্যাসিস্ট।
১২. ডিয়েগো জোতা (লিভারপুল); ২৩ গোল, ৬ অ্যাসিস্ট, ইংলিশ লিগ কাপ জয়।
১১. বার্নার্ডো সিলভা (ম্যানচেস্টার সিটি); ১১ গোল, ৮ অ্যাসিস্ট।

১০. ট্রেন্ট অ্যালেক্সান্ডার-আরনল্ড (লিভারপুল); ২ গোল, ২১ অ্যাসিস্ট, ২০ ক্লিন শিট, ইংলিশ লিগ কাপ জয়।
৯. ফিল ফোডেন (ম্যানচেস্টার সিটি); ১১ গোল, ১৩ অ্যাসিস্ট।
৮. ভিনিচিয়াস জুনিয়র (রিয়াল মাদ্রিদ); ১৭ গোল, ১৫ অ্যাসিস্ট, স্প্যানিশ সুপার কাপ জয়।
৭. কেভিন ডি ব্রুইনে (ম্যানচেস্টার সিটি); ১৫ গোল, ১২ অ্যাসিস্ট।
৬. সাদিও মানে (লিভারপুল); ২২ গোল, ৪ অ্যাসিস্ট, আফ্রিকান নেশনস কাপ ও ইংলিশ লিগ কাপ জয়।

৫. লুকা মডরিচ (রিয়াল মাদ্রিদ); ৬ গোল, ১০ অ্যাসিস্ট, স্প্যানিশ সুপার কাপ জয়।
৪. কিলিয়ান এমবাপ্পে (পিএসজি); ৪০ গোল, ২৭ অ্যাসিস্ট, উয়েফা নেশনস লিগ জয়।
৩. মোহাম্মদ সালাহ (লিভারপুল); ৩০ গোল, ১৫ অ্যাসিস্ট, ইংলিশ লিগ কাপ জয়।
২. রবার্ট লেভানডফস্কি (বায়ার্ন মিউনিখ); ৫২ গোল, ৮ অ্যাসিস্ট, জার্মান সুপার কাপ জয়।
১. করিম বেনজেমা (রিয়াল মাদ্রিদ); ৪০ গোল, ১৩ অ্যাসিস্ট, উয়েফা নেশনস কাপ ও স্প্যানিশ সুপার কাপ জয়।