advertisement
আপনি পড়ছেন

দেড় যুগ পর উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে বার্সেলোনা। কাতালানরা ছিটকে যায় ইউরোপের দ্বিতীয় সারির টুর্নামেন্টে ইউরোপা লিগে। এখানে অনেক দূর এগিয়েছিল জাভি হার্নান্দেজের দল। অবশেষে তাদের থামতো হলো। ইন্ট্র্যাক্ট ফ্র্যাঙ্কফুর্টের হাত ধরে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিতে হলো বার্সাকে।

20000 eintracht frankfurt fans pour into camp nouবার্সার ভুল এবং সমর্থকদের ‘বিশ্বাসঘাতকতা’

ফ্র্যাঙ্কফুর্টের মাঠে গিয়ে প্রথম লেগে ১-১ গোলে ড্র করেছিল বার্সেলোনা। ফলটা স্বাভাবিক। কেননা এবারের ইউরোপা লিগের নক আউট পর্বের তিন রাউন্ডেই প্রথম লেগে ড্র করেছে স্প্যানিশ ক্লাবটি। নাপোলি, গালাতাসারাইয়ের পর ফ্র্যাঙ্কফুর্টের সঙ্গে ড্র করে বার্সা। আগের দুই রাউন্ডে দ্বিতীয় লেগে উতরে গেছে জাভির দল। এবার শেষ রক্ষা হলো না তাদের।

শেষ আটের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে ঘরের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে বার্সা হেরেছে ৩-২ গোলে। ফল দেখে মনে হতে পারে ম্যাচটা থ্রিলার উপহার দিয়েছে। আসলে তেমনটি না। প্রথমার্ধেই বার্সা হজম করেছে দুই গোল। দ্বিতীয়ার্ধে আরো একটি। নির্ধারিত দেড় ঘণ্টা অবধি বিধ্বস্ত ছিল বার্সা। ৩-০ গোলে এগিয়ে ছিল ফ্র্যাঙ্কফুর্ট।

barcelona vs frankfortম্যাচের দৃশ্য

স্বাগতিকরা দুটো গোলই করেছে দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে। ম্যাচের শেষ মুহূর্তে আবার ১০ জনের দলে নেমে আসে ফ্র্যাঙ্কফুর্ট। তাতে অবশ্য কোনো সমস্যা হয়নি জার্মান ক্লাবটির। প্রশ্ন জাগতে পারে ঘরের মাঠে ড্র করা ফ্র্যাঙ্কফুর্ট কীভাবে বার্সার মাঠে এসে দাপুটে ফুটবল খেলেছে? উত্তরটা হতে পারে পরিচিত দর্শকের সামনে লড়াই করার অনুপ্রেরণা।

অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, বৃহস্পতিবার রাতে ন্যু ক্যাম্পের গ্যালারিতে ছিলেন প্রায় ২০ হাজার ফ্র্যাঙ্কফুর্ট সমর্থক। প্রতিপক্ষের মাঠে নিজেদের এতো সমর্থকের উপস্থিতিতে খুব স্বাভাবিকভাবেই উজ্জীবিত হয়ে ওঠে জার্মান ক্লাবটি। সেটার প্রতিফলন দেখা গেছে মাঠে। বার্সাকে স্রেফ উড়িয়ে দিয়ে সেমিফাইনালে উঠে গেল ফ্র্যাঙ্কফুর্ট।

কিন্তু ন্যু ক্যাম্পের গ্যালারিতে ফ্র্যাঙ্কফুর্টের এত দর্শক কীভাবে প্রবেশ করলেন? সবার হাতে টিকিট ছিল তো? এখানে অবশ্য কেউই টিকিট ছাড়া নন। এমনিতে ইউরোপিয়ান ফুটবল অভিভাবক উয়েফার নিয়ম হচ্ছে, সফরকারী দলের সমর্থকদের জন্য পাঁচ হাজার টিকিট বরাদ্দ রাখতে হবে। সেখানে ফ্র্যাঙ্কফুর্ট পেয়েছে বাড়তি ১৫ হাজার টিকিট।

এটা হয়েছে বার্সা সমর্থকদের ‘বিশ্বাসঘাতকতা’য় এবং ক্লাবের টিকিট ব্যবস্থাপনার ভুলে। বাড়তি টিকিট ফ্র্যাঙ্কফুর্ট সমর্থকরা কিনেছে আগেই সংগ্রহে থাকা বার্সেলোনা ভক্তদের কাছ থেকে। ফ্র্যাঙ্কফুর্ট দর্শকদের জন্য নাকি অনেক বার্সা সমর্থক নতুন করে টিকিটও কিনে দিয়েছে। বাকি সব টিকিট অনলাইন থেকে কেটেছে ফ্র্যাঙ্কফুর্ট ভক্তরা।

এখানে আবার কারসাজি করে তারা বার্সালোনার সমর্থক সেজেও টিকিট কাটেন। যখন বার্সা এটা জানতো পারলো ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে। কোটা অনুসারে পাঁচ হাজার দর্শক প্রবেশ করেছেন অতিথি দলের সমর্থকদের প্রবেশ মুখ দিয়েই। ফ্র্যাঙ্কফুর্টের অন্যসব দর্শকরা ঢুকেছেন বার্সা সমর্থকদের প্রবেশ পথ দিয়ে।

ম্যাচ যখন শুরু হলো তখন স্বাভাবিকের চেয়েও অনেক কম বার্সা সমর্থক দেখা গেছে। এরপর থেকেই শুরু হয় জল্পনা। অর্থাৎ, ঐতিহাসিক ম্যাচটা ন্যু ক্যাম্প নয়, ’ঘরের মাঠে’ই খেলেছে ফ্র্যাঙ্কফুর্ট। তাদের সহযোগিতা করে বার্সার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন নিজস্ব সমর্থকেরা। টিকিট ব্যবস্থাপনায় এমন ভুলের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে স্প্যানিশ ক্লাবটি।