advertisement
আপনি পড়ছেন

মৌসুম এখন শেষ দিকে। অনেক প্রশ্ন তাড়া করছে ফুটবলপ্রেমীদের। ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার কে হবেন? কার হাতে উঠবে এবারের ব্যালন ডি’অর? ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শ্যুর ২০২১-২২ মৌসুমের মুকুটেরই বা মালিক হবেন কে? প্রথম দুটি প্রশ্নের উত্তরের জন্য আরো কয়েক মাস অপেক্ষা করতে হবে। তবে শেষ প্রশ্নটার উত্তর আছে নাগালেই।

lewandowski salah haalandলেভা, সালাহ, হল্যান্ড

গোল্ডেন শ্যু জয়ের দৌড়ে আছেন কয়েকজনই। সিরো ইম্মোবিলে, মোহাম্মদ সালাহ, আরলিং হাল্যান্ড, করিম বেনজেমসহ অনেকেই। তাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন রবার্ট লেভানডফস্কি। অতি নাটকীয় কিছু না ঘটলে আবারো ইউরোপিয়ান ঘরোয়া ফুটবল লিগের সর্বোচ্চ গোলের পুরস্কাটা উঠতে যাচ্ছে বায়ার্ন মিউনিখের পোলিস স্ট্রাইকারের হাতে।

গোলের হিসেবে তার ধারে-কাছেও কেউ নেই। জার্মান বুন্দেসলিগায় ইতোমধ্যে ৩২টি গোল করেছেন লেভা। তার পয়েন্ট ৬৪। গত মৌসুমে জার্মান লিগে ৪১টি গোল করে ট্রফিটা জিতেছিলেন তিনি। সেই ফর্মটা এই মৌসুমেও টেনে এনেছেন লেভা। লিগে এখনো চার ম্যাচ বাকি আছে বায়ার্ন মিউনিখের। ইম্মোবিলে-সালাহ-বেনজেমাদের আরো পেছনে ফেলার সুযোগ আছে তার।

messi neymar ronaldo 2মেসি, নেইমার, রোনালদো

ইউরোপিয়ান শীর্ষস্থানীয় পাঁচ ঘরোয়া লিগে প্রতি গোলে খেলোয়াড়রা পেয়ে থাকেন দুই পয়েন্ট। এর বাইরের লিগগুলোতে গোলের জন্য ফুটবলাররা পান এক কিংবা দেড় পয়েন্ট। এভাবেই প্রতি মৌসুমে গোলের ওপর নির্ভর করে পয়েন্ট নির্ধারণ করা হয়। গত মৌসুমে ৮২ পয়েন্ট নিয়ে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শ্যু জিতেছিলেন লেভা।

প্রতি বছর শীর্ষ পাঁচ লিগের কেউ না কেউ জিতে থাকেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শ্যু। এবারেও তাই হতে যাচ্ছে। এ কারণে শীর্ষ ১০ জনের তালিকায় পাঁচ লিগের কোনো ফুটবলারকে রাখা হয়নি। শীর্ষ ২৫ জনের তালিকাতেই নেই পাঁচ লিগের বাইরের কেউ। একনজরে দেখে নেওয়া যাক এই মৌসুমে ঘরোয়া লিগে কার কত গোল ও পয়েন্ট:

১. রবার্ট লেভানডফস্কি (বায়ার্ন মিউনিখ, জার্মান বুন্দেসলিগা): ৩২ গোল ৬৪ পয়েন্ট।
২. সিরো ইম্মোবিলে (লাৎসিও, ইতালিয়ান সিরি’এ লিগ): ২৫ গোল, ৫০ পয়েন্ট।
৩. করিম বেনজেমা (রিয়াল মাদ্রিদ, স্প্যানিশ লা লিগা): ২৫ গোল, ৫০ পয়েন্ট।
৪. ব্লাহোভিচ জাকারিয়া কিন (ফিওরেন্টিনা ও জুভেন্টাস, ইতালিয়ান সিরি’এ লিগ): ২৩ গোল, ৪৬ পয়েন্ট।
৫. মোহাম্মদ সালাহ (লিভারপুল, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ): ২২ গোল, ৪৪ পয়েন্ট।

৬. কিলিয়ান এমবাপ্পে (পিএসজি, ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান): ২২ গোল, ৪৪ পয়েন্ট।
৭. প্যাট্রিক শিক (বায়ার লেভারকুজেন, জার্মান বুন্দেসলিগা): ২০ গোল, ৪০ পয়েন্ট।
৮. মার্টিন টেরিয়ার (রেঁনে, ফ্রেঞ্চ লিগও য়ান): ২০ গোল, ৪০ পয়েন্ট।
৯. উইসাম বেন ইয়েডার (মোনাকো, ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান), ১৯ গোল ৩৮ পয়েন্ট।
১০. আর্লিং হাল্যান্ড (বরুসিয়া ডর্টমুন্ড, জার্মান বুন্দেসলিগা, ১৮ গোল, ৩৬ পয়েন্ট।

শীর্ষ দশের বাইরে আছেন বেশ কয়েকজন তারকা ফুটবলার। টনেহাম হটস্পারের সন হিয়ুং মিন (১৭), লাইপজিগের ক্রিস্টোফার এনকুঙ্কু (১৭), হেলাসে ভেরোনার জিওভান্নি সিমন (১৬), কোলনের অ্যান্থনি মডেস্টি (১৬), অলিম্পিক লিওঁর মুসা ডেম্বেলে (১৫), ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো (১৫), এস্পানিয়লের রাউল দে টমাস (১৫), ইন্টার মিলানের লাওতারো মার্টিনেজ (১৫), লিভারপুলের ডিয়েগো জোতা (১৫), গেটাফের ইনিস উনাল (১৫) সেরা বিশে থাকলেও তাদের কারোর গোল্ডেন শ্যু জেতার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।