advertisement
আপনি পড়ছেন

বার্সেলোনার হয়ে চলমান মৌসুমের শেষভাগে দুর্দান্ত পারফর্ম করায় নতুন করে আলোচনায় আসেন পিয়েরে এমেরিক আউবামেয়াং। এবার আরও একটি কারণে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এই ফরোয়ার্ড। আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বলেছেন গ্যাবনের এই তারকা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে দেওয়া বার্তায় গ্যাবন ফুটবল ফেডারেশন বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

aubameyang gabonগ্যাবনের জার্সিতে আর দেখা যাবে না আউবামেয়াংকে

ফ্রান্সে জন্মগ্রহণ করেন আউবামেয়াং। ২০০৯ সালে তিউনিসিয়ার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ দিয়ে ফরাসি অনূর্ধ্ব-২১ দলের হয়ে অভিষেক হয় আক্রমণভাগের এই খেলোয়াড়ের। কিন্তু বাবা পিয়েরে আউবামেয়াংয়ের ইচ্ছার কারণে গ্যাবন জাতীয় দলের জার্সি গায়ে চাপান। পিয়েরে আউবামেয়াং এক সময় আফ্রিকান দলটির নেতৃত্ব দিয়েছেন।

২০০৯ সালে গ্যাবন জাতীয় দলের হয়ে পথচলা শুরু করেন আউবামেয়াং। এক যুগেরও বেশি সময়ের ক্যারিয়ারে খেলেছেন ৭২ ম্যাচ। গোল করেছেন ৩০টি। যেটা ৩২ বছর বয়সীকে দেশটির ইতিহাসের সেরা গোলদাতা বানিয়েছে। ২০১৪ সালে প্রথমবারের নেতৃত্বের গুরুদায়িত্ব পান। ২০১৬ সালে আফ্রিকার বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জেতেন গত জানুয়ারির উইন্ডোতে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব আর্সেনাল থেকে বার্সেলোনায় যোগ দেওয়া আউবামেয়াং।

aubameyang after goalবার্সেলোনার হয়ে দুর্দান্ত ফর্মে আছেন আউবামেয়াং

২০১২ সালে আফ্রিকান কাপ অব নেশন্সের ফাইনালে উঠেছিল গ্যাবন। জাতীয় দলের হয়ে সেটাই আউবামেয়াংয়ের সেরা সাফল্য। এবারের আফ্রিকার সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ টুর্নামেন্টটা ভালো যায়নি গ্যাবনের। শেষ ষোল থেকেই বিদায় নেয় দলটি। কোভিড টেস্টে পজিটিভ এবং হার্টের সমস্যা থাকায় টুর্নামেন্টে খেলতে পারেননি আউবামেয়াং। 

একটি খোলা চিঠিতে জাতীয় দল থেকে অবসরের বিষয়টি জানিয়েছেন আউবামেয়াং। সেখানে সমর্থক, সতীর্থ এবং কোচিং স্টাফদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তিনি। জাতীয় দায়িত্বকে ইস্তফা দিয়ে এবার ক্লাব ক্যারিয়ারে মনোযোগী হতে চান দ্রুতগতি সম্পন্ন এই ফুটবলার।