advertisement
আপনি পড়ছেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আদেশে সাত মুসলিম প্রধান দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করায় আদালতের উপর ক্ষুদ্ধ হয়ে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসী হামলার দায় নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

donald trump moody

রবিবার প্রেসিডেন্ট টুইট করেন, 'আমি বিশ্বাসই করতে পারছি না যে, একজন বিচারক আমাদের দেশটিকে বিপদের মুখে ফেলতে যাচ্ছে। এবার যদি যুক্তরাষ্ট্রে কিছু ঘটে তবে এর দায়ভার আমার নয়, আদালত ব্যবস্থার। যত্তোসব!'

{loadtweets}url=828342202174668800{/loadtweets} 

তিনি বলেন, 'আমি হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগকে নির্দেশনা দিয়েছিলাম আমাদের দেশে প্রবেশ করা প্রতিটি মানুষকে নিখুঁতভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার। কিন্তু আদালত এখন এটাকে খুব কঠিন করে তুলেছে।'

{loadtweets}url=828343072840900610{/loadtweets}

ক্ষমতা হাতে পেয়েই ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশে সাত মুসলিম প্রধান দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা নিষেধাজ্ঞা জারির পর গত শুক্রবার সিয়াটলের একটি আদালত এটিকে অসাংবিধানিক বলে উল্লেখ করে এবং নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করে।

এরপর গত শনিবার ট্রাম্প প্রসাশন এই স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে তা পুনর্বহালের আবেদন জানায়। আদালত এই আপিল খারিজ করে দিয়ে জানায়, চূড়ান্ত শুনানির আগ পর্যন্ত এই স্থগিতাদেশ বহাল রাখা হবে। এসময় হোয়াইট হাউসকে আরও যুক্তি ও প্রমাণসহ সোমবার পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করে দেয় আদালত।

এদিকে, ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করার পর অনেকেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পেরেছে।

এর আগে একটি টুইটে ট্রাম্প লিখেছেন, 'তথাকথিত বিচারক আইনের প্রয়োগ স্থগিত করেছেন।'

সেখানে তিনি লিখেছেন, 'আদালতের এই সিদ্ধান্ত অবশ্যই বাতিল করা হবে এবং ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করা হবে।'

উল্লেখ্য, গত ২৭ জানুয়ারী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একটি নির্বাহী আদেশে সই করেছেন। এই আদেশে সাত মুসলিম প্রধান রাষ্ট্রের নাগরিকদের জন্য ৯০ দিন এবং শরণার্থীদের জন্য ১২০ দিনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু সিরিয়ার জন্য এই নিষেধাজ্ঞা অনির্দিষ্টকালের জন্য জারি করা হয়েছে।