advertisement
আপনি দেখছেন

গত বছরের শেষ দিকে সীমান্তে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর বেশ কয়েকজন সদস্য নিহত হন। এই ঘটনার পর থেকে রোহিঙ্গা মুসলমান অধ্যুষিত আরাকান রাজ্যে অভিযানের নামে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো হয় নির্মম অত্যাচার। এরপর রোহিঙ্গারা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তবর্তী জেলাগুলো পালিয়ে আসে। এ অবস্থায় ভারত সরকার প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গাকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

Rohinga muslim

ভারত সরকার ইতোমধ্যে সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে রোহিঙ্গা মুসলমানদের শনাক্ত করতে শুরু করেছে। ভারত বলছে, বিগত ৫-৭ বছর ধরে যারা মায়ানমার থেকে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢুকেছে তারা অবৈধভাবে জম্মুসহ বিভিন্ন জেলায় বাস করছে। কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্যোগে তাদের চিহ্নিত করে বহিষ্কারের প্রক্রিয়া চলছে।

ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, ভারতে অন্তত ৪০ হাজার রোহিঙ্গা মুসলমানের বসবাস। যারা মায়ানমার থেকে ভারতে পালিয়ে এসেছে। মূলত রোহিঙ্গারা চীন, বাংলাদেশ সীমান্ত এবং সমুদ্রপথে ভারতে প্রবেশ করে।

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, প্রায় ৬ হাজার রোহিঙ্গা শুধুমাত্র জম্মুতেই আছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আশঙ্কা, গণনা সঠিক হলে সংখ্যাটা ১১ হাজারে গিয়ে ঠেকবে। জম্মুতে রোহিঙ্গাদের সংখ্যাটা অস্বাভাবিক বলেও মনে করছে তারা। বিভিন্ন বস্তিতে ভুয়া পরিচয়পত্রও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

গতকাল ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব রাজীব মেহঋষি জম্মু কাশ্মীরের মুখ্য সচিব, ডিজিপি, বিএসএফের আধিকারিকরা ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে বলা হয়, বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনগুলোর সঙ্গে রোহিঙ্গাদের যুক্ত থাকার বড় ধরণের আশঙ্কা রয়েছে। তাই তাদের বহিস্কারের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে হবে।