advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারতে ধর্ষণের অভিযোগে আধ্যাত্মিক ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংকে দোষী সাব্যস্ত করে ২০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এর আগে ভারতের সংবাদমাধ্যমে রাম রহিমের ১০ বছর কারাদণ্ড হয়েছে বলে খবর বেরিয়েছিলো। সে সূত্র ধরে বাংলাদেশের গণমাধ্যমেও ১০ বছরের শাস্তির কথা বলা হয়।

gurmeet ram rahim

রাম রহিমের আইনজীবী এস.কে. গর্গ নারওয়ানা জানান, দুইটি ধর্ষণ মামলায় রাম রহিমকে ১০ বছর করে ২০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছে বিশেষ সিবিআই আদালত। প্রতিটি মামলার জন্য তাকে ধারাবাহিকভাবে ১০ বছর করে সাজা ভোগ করতে হবে। ফলে রাম রহিমকে ২০ বছর কারাগারে কাটাতে হবে।

একইসাথে বিতর্কিত এই ধর্মগুরুকে দুটি মামলায় ১৫ লাখ রুপি করে জরিমানা করা হয়েছে। নির্যাতনের শিকার দুই নারী ১৪ লাখ করে ক্ষতিপূরণ পাবেন।

এর আগে গত শুক্রবার চণ্ডিগড়ের পাঁচকুলার একটি বিশেষ আদালত দু’জন নারী ভক্তকে ধর্ষণের অভিযোগে রাম রহিম সিংকে দোষী সাব্যস্ত করে। এর পরপরই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সহিংসতা শুরু করেন রাম রহিম সিংয়ের ভক্তরা।

হিন্দুস্থান টাইমস তাদের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, রাম রহিমের বিরুদ্ধে মামলার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে পাঞ্জাব ও আশোপাশের রাজ্যগুলোতে কঠোর নিরাপত্তা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালে নিজের আশ্রমে দুই নারীকে ধর্ষণ করেছেন বলে রাম রহিম সিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। এরপর এই ঘটনায় ২০০২ সালে সিবিআই এই ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করে। ২০০৭ সাল থেকে ওই মামলার শুনানি শুরু হয়। দীর্ঘদিন শুনানি চলার পর আদালত আজ ২৮ আগস্ট এই মামলায় রাম রহিম সিংকে দোষী সাব্যস্ত করে।