advertisement
আপনি পড়ছেন

কিউবায় মারাত্মক এক সমস্যায় পড়েছেন মার্কিন কূটনীতিকরা। দেশটির দূতাবাসে কর্মরত কূটনীতিকরা ধীরে ধীরে অজ্ঞাত এক রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। প্রাথমিকভাবে ডাক্তাররা এই শারীরিক সমস্যার কোন কারণ খুঁজে বের করতে পারেননি। অনেকের অবস্থা এতোটাই ভয়াবহ যে, জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন।

us embassy in cuba

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি জানান, উদ্ভুত পরিস্থিতিতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন কিউবাস্থ মার্কিন দূতাবাস বন্ধ করে দেয়ার বিষয়টি ভাবছে। হাভানায় নিযুক্ত উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মার্কিন কূটনীতিক স্বাস্থ্যগত নানাধরণের জটিলতায় ভুগছেন। এ কারণে দূতাবাস বন্ধের চিন্তা করছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে স্বাস্থ্যগত সমস্যাটি কী ধরণের সেটি জানানো হয়নি।

টিলারসন বলেন, ‌'শারীরিক অসুস্থতার বিষয়টি আমরা পর্যালোচনা করছি। কয়েকজন কর্মকর্তা স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগছেন। বিষয়টি মারাত্মক পর্যায়ে গেছে। অসুস্থ কূটনীতিকদের কয়েকজনকে দেশে আনা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে উচ্চপর্যায়ে পর্যালোচনা চলছে।'

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। কিন্তু তারা কোন সুস্পষ্ট তথ্য দিতে পারেনি। কিউবায় নিযুক্ত কমপক্ষে ২১ জন মার্কিন কূটনীতিক স্বাস্থ্যগত জটিলতায় ভুগছেন। কর্মকর্তাদের মধ্যে কেউ কেউ স্থায়ী শ্রবণশক্তি হারিয়েছেন, কেউ হঠাৎ জ্ঞান হারাচ্ছেন, কেউ আবার বমি করছেন, কারো কানে নানা রকম শব্দ হচ্ছে। কারো স্মৃতিশক্তি লোপ পেয়েছে।

২০১৫ সালে প্রায় ৫৪ বছর পর কিউবা এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বন্ধুত্ব স্থাপিত হয়। সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কিউবা সফরে দেশটিতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস চালু হয়। তবে ডোনাল্ড ট্রাম্প বিষয়টি ভালোভাবে নেননি। নির্বাচনী প্রচারণাতে তিনি বলেছিলেন, তিনি প্রেসিডেন্ট হলে কিউবাস্থ দূতাবাসটি বন্ধ করে দেবেন।