advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের হায়দরাবাদে তরুণী চিকিৎসককে গণধর্ষণ ও পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনই পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক খবরে বলা হয়েছে, পুলিশ হেফাজত থেকে পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশের গুলিতে তাদের মৃত্যু হয়।

telengana doctor incident

পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্তদের ঘটনাস্থলে নেয়া হলে এই ঘটনা ঘটে।

সাইবারাবাদের পুলিশ কমিশনার ভিসি সাজ্জানার বার্তা সংস্থা এএনআইকে জানান, ধর্ষণের শিকার পশু-চিকিৎসক প্রিয়াঙ্কা রেড্ডিকে (২২) যেখানে পোড়ানো হয় সেখানে অভিযুক্ত আরিফ (২৬), নবীন (২০), শিব (২০) ও চেন্নাকেশাভুলুকে (২০) নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো। ঘটনাস্থলে নিয়ে যাবার পথেই শাদনগরে চাতানপল্লিতে থেকে পালানোর চেষ্টা করে তারা। পরে পুলিশ গুলি চালায়।

প্রসঙ্গত, হায়দরাবাদের তেলেঙ্গানায় গত ২৮ নভেম্বর রাতে ধর্ষণের শিকার হন চিকিৎসক প্রিয়াঙ্কা রেড্ডি। একটি টোল বুথের কাছে স্কুটার রেখে গন্তব্যে যান তিনি। অভিযুক্তরা মদ্যপ অবস্থায় তার স্কুটারের টায়ার পাংচার করে দিয়ে তার ফেরার অপেক্ষা করতে থাকে।

প্রিয়াঙ্কা ফিরে স্কুটারের বেহাল দশা দেখতে পান। এমন সময় ওই চারজন সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসার নামে তাকে নৃশংসভাবে ধর্ষণ ও খুন করেন। পরে ঘটনার আলামত নষ্ট করার জন্য সেখান থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে শাদনগর এলাকার চাতানপল্লী সেতুর কাছে তাকে আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়। অভিযুক্তরা ট্রাক চালাতেন ও হেলপারের কাজ করতেন।

এ জঘন্য ঘটনায় ভারতজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। ধর্ষকদেরকে মানুষের হাতে তুলে দাবার জন্য দাবি তোলা হয়। ধর্ষনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে আসেন জনসাধারণ।