advertisement
আপনি দেখছেন

নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় বিক্ষোভের তীব্রতা আরও বেড়ে গেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে। শনিবার পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত ছিল যে, মুর্শিদাবাদের কৃষ্ণপুর স্টেশনে প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে থাকা পাঁচটি ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। এ ছাড়া মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুর স্টেশনে একটি লোকাল ট্রেনেও একদল বিক্ষোভকারী হামলা চালিয়েছে।

westbengal nrc protest

এর আগে শুক্রবার বেলডাঙা ও উলুবেড়িয়া স্টেশনে তাণ্ডব চালিয়েছিল বিক্ষোভকারীরা। তা নিয়ে সংখ্যালঘু নেতারা শনিবার তীব্র সমালোচনা করেছেন। তারা বলেছেন যে, প্রতিবাদ জানানো যেতেই পারে। কিন্তু তা সহিংসতার পথে গিয়ে নয়। এতে আখেরে রাজ্যেরই ক্ষতি হচ্ছে।

অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট বার্তা দিয়ে বলেছেন, কেউ যেন আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়। গণতান্ত্রিক পথে আন্দোলন চলতেই পারে। কিন্তু কেউ যেন রেল ও পথ অবরোধ না করে।

কিন্তু তার পরও দেখা যায়, হাওড়ার সাঁতরাগাছি, উত্তর চব্বিশ পরগণার আমডাঙা, দক্ষিণ ২৪ পরগণায় বিক্ষিপ্তভাবে কিছু এলাকা এবং মুর্শিদাবাদ জেলায় সহিংস বিক্ষোভ চলছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, বিক্ষোভ-অবরোধের কারণে কৃষ্ণপুর স্টেশনে ওই পাঁচটি ট্রেন প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে ছিল। অবরোধ দীর্ঘায়িত হওয়ায় ভিতরে কোনো যাত্রী ছিল না। সারাদিন ট্রেনগুলির ওপর কোনও হামলার ঘটনাও ঘটেনি। কিন্তু বিকেল গড়াতেই কয়েক শ বিক্ষোভকারী কৃষ্ণপুর স্টেশনে তাণ্ডব শুরু করে। রেল পুলিশের নিরাপত্তারক্ষীরা ভয়ে স্টেশন ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।

তবে রেল স্টেশনে তাণ্ডব শুধু মুর্শিদাবাদেই সীমিত ছিল না। শনিবার সকালে হাওড়ার সাঁকরাইল স্টেশনের বুকিং কাউন্টারে আগুন লাগিয়ে দেয় দুষ্কৃতরা। এতে রেলের প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এমনকি রেল পুলিশের অভিযোগ, টিকিট কাউন্টার থেকে টাকা লুট করার চেষ্টাও হয়েছে।