advertisement
আপনি দেখছেন

চীনে ছড়িয়ে পড়া নিউমোনিয়া জাতীয় নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো আট জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৫ জন হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করেছে দেশটির সরকার। আক্রান্তের সংখ্যা ৮০০ ছাড়িয়েছে।

corona vairus in chaina

চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানায়, ভাইরাসের সংক্রমণে এখন পর্যন্ত ২৫ জনের মৃত্যু এবং আক্রান্ত হয়েছেন আরো ৮৩০ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ১৭৭ জনের অবস্থা গুরুতর। সন্দেহভাজন আরো এক হাজার ৭২ জনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। মৃত এবং আক্রান্তদের বেশিরভাগই দেশটির হুবেহু প্রদেশের রাজধানী উহান শহরের বাসিন্দা।

ধারণা করা হচ্ছে, গত বছরে দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় উহান শহর থেকেই নতুন এই করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, চীনের বাইরে আরো সাতটি দেশে নতুন এই ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে চারজন থাইল্যান্ডে এবং যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান ও ভিয়েতনামে একজন করে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে এসব দেশে এখন পর্যন্ত কারো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে আগামী শনিবার থেকে চীনে শুরু হচ্ছে লুনার নিউ ইয়ারের সপ্তাহব্যাপী ছুটি। এ সময় দেশটির কোটি কোটি মানুষ এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যাতায়াত করবে। এ সময় নতুন এই ভাইরাসের সংক্রামণও হু হু করে বেড়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছে কর্তৃপক্ষ।

corona vairus in chaina 2

পরিস্থিতি সামাল দিতে ইতোমধ্যে দেশটির হুয়াংগাং ও উহান শহরে গণপরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে বড় উৎসব, মন্দিরের মেলা ও পর্যটনপ্রিয় নগরীতে ঘুরতে যাওয়া। স্থগিত করা হয়েছে বিভিন্ন চলচ্চিত্রের মুক্তিও।

উহান শহরের সব জায়গায় মানুষের ফেইসমাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শহরটির সঙ্গে অন্যান্য প্রদেশের বিমান, রেল ও সড়ক যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

দেশটির এমন পরিস্থিতি নিয়ে ইতোমধ্যে জেনেভায় একটি বৈঠকও করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তবে চীন ছাড়া আরো সাত দেশে মাত্র ১৩ জন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় এখনই এটিকে ‘বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা’ হিসেবে ঘোষণা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডব্লিউএইচও।

এ বিষয়ে ডব্লিউএইচও-র প্রধান টেড্রস আধানম গ্যাব্রিয়েসুস বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রামণে চীনে জরুরি অবস্থার সৃষ্টি হলেও এটি নিয়ে এখনই বিশ্ববাসীর উদ্বিগ্ন হওয়ার প্রয়োজন নেই। তবে এটি ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে।