advertisement
আপনি দেখছেন

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরের জনগণের ওপর নিপীড়নের প্রতিবাদ ও সমালোচনাকারী ব্রিটিশ এমপি ডেবি আব্রাহামসকে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকেই দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

british mp abrahams

গতকাল সোমবার ব্রিটেন থেকে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী বিমানবন্দরে অবতরণ করার পর তাকে আর ইমিগ্রেশন পার হয়ে ভারতে ঢুকতে দেয়া হয়নি। বরং সেখান থেকে জোর করে দুবাইগামী বিমানে তুলে দেওয়া হয়।

ডেবি আব্রাহামস ব্রিটেনের বিরোধী লেবার দলের সংসদ সদস্য, যিনি কাশ্মির বিষয়ক ব্রিটিশ সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের সভাপতি। তাকে দিল্লি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স দিতে অস্বীকৃতি জানায় এবং তার ভারতীয় ভিসার বৈধতা প্রত্যাখ্যান করে। ডেবি আব্রাহামসের ব্রিটিশ দপ্তর থেকে এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

আব্রাহামসকে ভারতে প্রবেশ করতে না দেওয়ার কারণ হিসেবে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বলেছে, তার ভিসা যথাযথ ছিল না।

বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের মন্তব্যের পর দিল্লির ব্রিটিশ হাইকমিশন বলেছে, কেন আব্রাহামসকে ভারতে প্রবেশ করতে দেওয়া হলো না, সে বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন তারা।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষের এমন আচরণের প্রতিক্রিয়ায় আব্রাহামস বলেছেন, তার সঙ্গে আসামিদের মতো আচরণ করা হয়েছে।

এক বিবৃতিতে আব্রাহামস বলেছেন, সোমবার ভারতীয় সময় সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে দিল্লি বিমানবন্দরে নামেন তিনি। কিন্তু তখন বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা তাকে জানান, তার ই-ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে।

আব্রাহামসের ভাষ্য, ‘বাকি সবার মতো আমিও আমার ই-ভিসা ইমিগ্রেশন ডেস্কে দেখাই এবং ছবি তুলি। তখন কর্মকর্তারা স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে মাথা ঝোঁকাতে থাকেন। আমাকে তিনি বললেন, আপনার ভিসা প্রত্যাখ্যান করা হলো। এরপর আমার পাসপোর্ট নিয়ে মিনিট দশেকের জন্য উধাও হয়ে যান। যখন তিনি ফিরে এলেন, তখন তিনি খুবই কঠোর আচরণ করছিলেন। চিৎকার করে বললেন, আমার সঙ্গে আসুন। আমি তাকে আমার সঙ্গে এমন আচরণ করতে বারণ করি।’

এরপর আব্রাহামস তার এক আত্মীয়কে ফোন দেন এবং ব্রিটিশ হাই কমিশনেও ফোন দেন। তিনি ‘অন অ্যারাইভাল’ ভিসার আবেদন করলে সেটিও প্রত্যাখ্যান করা হয়। এরপর ভারতে প্রবেশ করতে না দিয়ে তাকে বিমানবন্দর থেকেই জোর করে দুবাইগামী বিমানে তুলে দেওয়া হয়।

আব্রাহামস বলেছেন, বিমানবন্দরের কর্মকর্তাদের আচরণ এমন ছিল, যেন তিনি আসামি।

এদিকে, নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে দেওয়া এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘সবার জন্য মানবাধিকার ও সামাজিক ন্যায্যতা নিশ্চিত করার জন্যই আমি সংসদ সদস্য হয়েছি। অন্যায় দেখলে আমি সমালোচনা করবই, হোক সে আমার সরকার কিংবা অন্য কোনো সরকার।’

উল্লেখ্য, গত বছরের ৫ আগস্ট ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মিরের স্বায়ত্ত্বশাসনের মর্যাদা বাতিল করে ভারতের সঙ্গে একীভূত করে নেয়। ডেবি আব্রাহামস শুরু থেকেই এর বিরুদ্ধে সমালোচনা ও প্রতিবাদ করে আসছিলেন।