advertisement
আপনি দেখছেন

ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের প্রধান ইয়োসি কোহেন গত ৫ ফেব্রুয়ারি কাতারের রাজধানী দোহা সফর করেছেন। এ সফরের উদ্দেশ্য ছিল হামাস নিয়ন্ত্রিত গাজায় কাতারের আর্থিক সাহায্য অব্যাহত রাখা। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নির্দেশে এ সফর হয়েছে বলে জানান সেখানকার সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও প্রভাবশালী রাজনীতিক আভিগদর লিবারম্যান। খবর জেরুজালেম পোস্ট।

mossad chief

গত শনিবার স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেল 'চ্যানেল ১২' কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। লিবারম্যান বলেন, নেতানিয়াহু মোসাদ প্রধান ও ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর দক্ষিণাঞ্চলীয় কমান্ডের প্রধান হার্জল হেলেভিকে গোপনে কাতার পাঠিয়েছেন। তাদের উদ্দেশ্য ছিল কাতারকে গাজায় অর্থদানের বিষয়ে নমনীয় করা। যাতে করে তারা হামাসকে অর্থ সরবরাহ অব্যাহত রাখে।

আভিগদর বলেন, হামাসের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে মিসর ও কাতার কর্তৃপক্ষ তাদের ওপর ক্ষুব্ধ। দুই দেশ হামাসের সঙ্গে সব রকম যোগাযোগ বিচ্চিন্ন করার চিন্তা করছিল। এমন অবস্থায় নেতানিয়াহু হামাসের ত্রাতার ভূমিকা পালন করলেন। তিনি মিসর ও কাতারকে গাজায় অর্থ সরবরাহ অব্যাহত রাখার জন্য আহ্বান জানান।

মোসাদের এই ভূমিকাকে ‘সন্ত্রাসবাদের কাছে আত্মসমর্পণ’ বলেও মন্তব্য করেন আভিগদর লিবারম্যান।

জেরুজালেম পোস্ট জানায়, কাতারে ইসরায়েলি কর্মকর্তারা ২৪ ঘণ্টারও কম সময় অবস্থান করেন। তারা সেখানে কাতারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মোহাম্মদ বিন আহমেদ আল-মিসনাদের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই সফরের পর গত শুক্রবার কাতার থেকে ঘোষণা আসে, তারা গাজায় সহায়তা বৃদ্ধি করবে।

উল্লেখ্য, ২০১২ সাল থেকে গাজাকে প্রায় ১০০ কোটি ডলার আর্থিক সহায়তা দিয়েছে কাতার। সাম্প্রতিক সময়ে সে সহযোগিতার পরিমাণ কমে গেছে। কিন্তু নতুন ঘোষণায় এ পরিমাণ বাড়বে বলে ধারণা করছেন অনেকে।