advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের রাজধানী দিল্লির বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন রাজ্য হাইকোর্ট। বুধবার এক শুনানিতে বিচারপতি ডি এস মুরলিধর ও বিচারপতি অনুপ জয়রাম বাম্বানিকে নিয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ১৯৮৪ সালের মতো দাঙ্গার পুনরাবৃত্তি ঘটতে দেয়া যাবে না।

dellhi protest new

গত দুইদিন ধরে দিল্লিতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে আন্দোলনরত বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ক্ষমতাসীন বিজেপি সমর্থকদের সহিংসতা চলছে। এ নিয়ে আজ হাইকোর্টে এক শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে চলমান সহিংসতার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে আদালতে শুনানির আবেদন করেন অবসরপ্রাপ্ত কূটনীতিক হর্ষ মন্দার।

শুনানিতে চলমান সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হওয়ার পেছনে পুলিশের গাফিলতির দিকে আঙ্গুল তুলেছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি এ ঘটনায় মদদ দেয়ার জন্য রাজ্য বিজেপি নেতা কপিল মিশ্রকে দায়ী করা হয়েছে।

এ সময় কপিল মিশ্রর ভাষণের ভিপিও ক্লিপ আদালতে দেখা হয়। শুধু কপিলই নন, এ সংক্রান্ত সকল উস্কানিমূলক বক্তৃতার ক্লিপ শুনতে চেয়েছেন আদালত। পাশাপাশি সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত ও তাদের পরিবারের কাছে যাওয়ার জন্য রাজ্য প্রশাসন এবং কেন্দ্রীয় সরকারের সর্বোচ্চ পদাধিকারীদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

এদিকে দিল্লি পুলিশের তরফ থেকে মামলাটিকে আগামীকাল ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্থগিত রাখার আবেদন জানান আইনজীবী তুষার মেহতা। পাশাপাশি এ মামলায় কেন্দ্রীয় সরকারকেও পক্ষ রাখার আবেদন জানান তিনি। তখন আদালতের পক্ষ থেকে পাল্টা জানতে চাওয়া হয়, ‘দোষীদের বিরুদ্ধে এফআইআর দাখিল করা কি আপনার যথেষ্ট জরুরি বলে মনে হয় না? বিশেষ করে এ বিষয়ে ভিডিও ক্লিপ যখন প্রকাশ্যে এসেছে?’

প্রসঙ্গত, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে আন্দোলনরত বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ক্ষমতাসীন বিজেপি সমর্থকদের মধ্যকার সহিংসতা বেড়েই চলেছে। এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩ জনে। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ছাড়া আহত হয়েছেন দুই শতাধিক লোক।

sheikh mujib 2020