advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিভিন্ন দেশের রাজনীতিবিদ ও তাদের পরিবারের সদস্যরা আক্রান্ত হয়েছেন। পরীক্ষাও করিয়েছেন অনেকে। নানা কারণে আশঙ্কা করা হচ্ছিলো, তাদের দেহে ভাইরাসের অস্তিত্ব থাকলেও থাকতে পারে। 

 brazil president corona infectedব্রাজিল প্রেসিডেন্ট (বামে) ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

সিএনএন একটি তালিকা প্রকাশ করেছে যেখানে তারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নেতাদের নাম প্রকাশ করেছে। এ তালিকা পাঠকদের উদ্দেশে তুলে ধরা হলো-

যুক্তরাষ্ট্র: দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনা আক্রান্ত বিভিন্ন লোকের সংস্পর্শে আসায় অনেকেই ধারণা করছিলেন তার দেহেও ভাইরাসটি দানা বেঁধেছে। তবে শনাক্তকরণ পরীক্ষায় তার দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। তবে তার মেয়ে ইভাংকা ট্রাম্প ভাইরাসের আতঙ্কে আইসোলেশনে আছেন। দেশটির শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে মিয়ামির মেয়র ফ্রান্সিস সুয়ারেজ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন। তার সংস্পর্শে আসা অন্য আইনপ্রণেতাদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

কানাডা: দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর স্ত্রী সোফি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। আর কোয়ারেন্টাইনে থেকে দায়িত্ব পালন করছেন ট্রুডো।

trudoe his wifeজাস্টিন ট্রুডো ও স্ত্রী সোফি

ফ্রান্স: নতুন করে ফ্রান্সে চারজন রাজনীতিবিদ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের একজন সংসদ সদস্য। একজন পার্লামেন্টের কর্মকর্তা। তাদের মধ্যে একজন দেশটির সংস্কৃতিমন্ত্রী এবং অন্যজন পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী।

ব্রাজিল: ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে সফরে যাওয়া দেশটির তিন সদস্যও আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে প্রেসিডেন্টের প্রেস সচিবও আছেন।

brazil president corona infected02ব্রাজিল প্রেসিডেন্ট ও ডোনাল্ড ট্রাম্প (ডানে)

স্পেন: স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজের স্ত্রী ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের অবস্থা এখনো স্থিতিশীল বলে জানা গেছে। দুইজনেই কোয়ারেন্টাইনে আছেন এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা অনুসরণ করছেন।

যুক্তরাজ্য: দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। কয়েকদিন আগে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তাই আশঙ্কা আছে, বরিস জনসনও ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হতে পারেন।

health minister is positiveব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী (ডানে)

ফিলিপিন্স: প্রেসিডেন্ট রডরিগো দুতের্তের ভাইরাস শনাক্ত করেছেন চিকিৎসকরা। এতে ফলাফল নেতিবাচিক এসেছে। তাই তিনি এখন কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

ইরান: সবচেয়ে বেশি রাজনৈতিক নেতা আক্রান্ত হয়েছে ইরানে। ঘটেছে মৃত্যুর ঘটনাও। দেশটির পার্লামেন্টের ২৩ সদস্য করোনা আক্রান্ত। তাদের মধ্যে দুইজন মারাও গেছেন। মারা গেছেন দেশটির সাবেক রাষ্ট্রদূতও। এ ছাড়া আক্রান্তের তালিকায় আছেন ইরানের কয়েকজন ভাইস-প্রেসিডেন্ট।

23 parliament member of iran infected in coronavirusইরান পার্লামেন্টে

অস্ট্রেলিয়া: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে। তিনি কিছু দিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার ও ট্রাম্প কন্যার সঙ্গে দেখা করেছেন। এ ছাড়া হোয়াইট হাউসের কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গেও তিনি সাক্ষাৎ করেছেন।

মঙ্গোলিয়া: চীনে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর প্রথম কোনো রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে সেখানে সফর করেছেন মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট খালতমাজিন বাতুলগা। তিনিসহ ওই সফরে যারা গেছেন তাদের সবাইকে দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।