advertisement
আপনি দেখছেন

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্যে ভ্রমণকারী বিদেশি নাগরিকদের কিছুদিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে সম্প্রতি ব্রিটিশ সরকার ৫৯টি দেশের নাগরিকদের ক্ষেত্রে এ নিয়ম শিথিল করেছে। যা আগামী ১০ জুলাই থেকে কার্যকর হবে।

uk airport situationযুক্তরাজ্যে গেলে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে না ৫৯ দেশের নাগরিকদের- পুরান ছবি

শুক্রবার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি ব্রিটিশ সরকার ৫৯টি দেশের একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করেছে। যাদের এই মহামারির মধ্যে যুক্তরাজ্যে গেলে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে না। পাশাপাশি ১৪টি ব্রিটিশ অঞ্চলের নাগরিকদেরও এ নিয়ম মানতে হবে না। তবে তারা যদি সম্প্রতিক সময়ে তালিকায় থাকা দেশগুলোর বাইরে অন্য কোনো জায়গায় ভ্রমণ করে থাকেন তাহলে তাদেরও কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

এ বিষয়ে সম্প্রতি ডাউনিং স্ট্রিটে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ইংল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সেসব দেশের নাগরিকরা সতর্কতামূলক নির্দেশনাও মেনে চলছে। তাই ইংল্যান্ডে ভ্রমণে আসা বিশ্বের প্রতিটি দেশের নাগরিকদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার কোনো মানে নেই। তবে যেসব দেশে কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে নেই সেসব দেশের নাগরিকদের অবশ্যই যুক্তরাজ্যে আসলে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

boris jhonson hospitalব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন- ফাইল ছবি

ব্রিটিশ সরকারের তালিকায় স্থান পাওয়া সেই ৫৯টি দেশ হলো- অস্ট্রেলিয়া, আরুবা, বাহামা, বেলজিয়াম, সিন্ট এস্টাশিয়াস অ্যান্ড সাবা, সাইপ্রাস, ডেনমার্ক, ফিজি, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিনল্যান্ড, গুয়াদেলোপ, হাঙ্গেরী, ইতালি, জাপান, লিচেনস্টেইন, লুক্সেমবার্গ, মাল্টা, মোনাকো, নিউ ক্যালেডোনিয়া, নরওয়ে, রিইউনিয়ন, সার্বিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, সেন্ট বার্থেলেমি, সেন্ট লুসিয়া, সেন্ট পিয়েরে অ্যান্ড মিকুয়েলন, সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস, সুইজারল্যান্ড, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো, ভ্যাটিকান সিটি, অ্যান্টিগুয়া অ্যান্ড বার্বুডা, অস্ট্রিয়া, বার্বাডোস, বোনাইর, ক্রোয়েশিয়া, চেক রিপাবলিক, ডোমিনিকা, ফারাও দ্বীপপুঞ্জ, ফিনল্যান্ড, ফ্রেন্স পলিনেশিয়া, গ্রিস, গ্রানাডা, হংকং, আইসল্যান্ড, জ্যামাইকা, লিথুয়ানিয়া, ম্যাকাও, মৌরিশাস, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড, পোল্যান্ড, স্যান ম্যারিনো, সিচেলেস, স্পেন, তাইওয়ান, ভিয়েতনাম ও তুরস্ক।

sheikh mujib 2020