advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে সৌদি আরব। সংক্রমণের হার পর্যালোচনা করে এ তথ্য জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের গ্লোবাল হেলথ ইনস্টিটিউট। তারা বিভিন্ন দেশে ভাইরাসটির পরিস্থিতি ও সরকারের নেয়া পদক্ষেপ পর্যালোচনা করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করেছে।

testing in saudi arabiaকরোনা টেস্ট করা হচ্ছে এক সৌদি নাগরিকের

আল আরাবিয়ার বরাতে জানা যায়, সৌদি আরবকে অরেঞ্জ জোন ক্যাটাগরিতে রেখেছে গ্লোবাল হেলথ ইনস্টিটিউট। তারা মূলত রেড, অরেঞ্জ, ইয়োলো, গ্রিন এই চার বিভাগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে ভাগ করেছে।

গ্রিন বিভাগের দেশগুলোতে করোনার সংক্রমণের হার সবচেয়ে কম। এর পরই আছে ইয়োলো। রেড ও অরেঞ্জ বিভাগে রাখা হয়েছে সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোকে। প্রতি ১ লাখ মানুষে নতুন সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ১ বা তার কম হয় তাহলে ওই দেশকে গ্রিন বিভাগে রাখা হবে। সংখ্যাটি ১ থেকে ৯ এর মধ্যে থাকলে ইয়োলো। ১০ থেকে ২৪ এর মধ্যে থাকলে অরেঞ্জ বিভাগ। প্রতি লাখে নতুন সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ২৫ এর অধিক থাকলে তা রেড বিভাগে স্থান পাবে।

saudi capital riyadhসৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদ

সৌদি আরবে প্রতি ১ লাখ মানুষের মধ্যে গড়ে ১১ দশমিক ১ জন মানুষ নতুন করে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হচ্ছে। যার দরুন গ্লোবাল হেলথ ইনস্টিটিউট দেশটিকে অরেঞ্জ বিভাগে রেখেছে। সৌদির উদ্দেশ্যে সংস্থাটি থেকে টেস্ট বাড়ানো, আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তদের চিহ্নিত, লকডাউন কার্যকর করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

দেশটিতে সম্প্রতি কারফিউ তুলে দেয়া হয়েছে। জনগণকে কড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সরকার থেকে। প্রতিনিয়ত মানুষকে টেস্ট করা হচ্ছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে আসা মানুষকে খুঁজে বের করতে তাওয়াক্কালনা নামে নতুন একটি অ্যাপও নামিয়েছে সৌদি প্রশাসন।

সৌদি আরবে এখন পর্যন্ত প্রায় ২ লাখ ২ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে। মারা গেছে ১ হাজার ৮০২ জন।

sheikh mujib 2020