advertisement
আপনি দেখছেন

তুরস্কের একটি বাণিজ্যিক জাহাজে তল্লাশি চালানোর অভিযোগ উঠেছে। পূর্ব ভূমধ্যসাগরে লিবিয়া অভিমুখী ওই জাহাজটিতে তল্লাশি চালানোর প্রতিবাদে আঙ্কারায় নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) জার্মানি ও ইতালির রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে তুরস্ক।

turkey summons eu germany italy embassadorতুর্কি জাহাজে জার্মান নৌসেনাদের অভিযান

তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল সোমবার ওই রাষ্ট্রদূতদের তলব করে বলে খবর দিয়েছে দেশটির গণমাধ্যম।

এর আগে একই দিন তুরস্কের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় যে, তুরস্কের বাণিজ্যিক জাহাজ রোজেলিনে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করে তল্লাশি চালিয়েছে জার্মান নৌবাহিনীর সদস্যরা। এর কয়েক ঘণ্টা পরই ওই তিন রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয় বলে জানিয়েছে পার্সটুডে।

german soldiers searching turkey shipতুর্কি জাহাজে জার্মান নৌসেনাদের অভিযান

তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, গ্রিসের পেলোপোনিস উপত্যকার কাছে রোববার তাদের বাণিজ্যিক জাহাজ রোজেলিনে যে তল্লাশি চালানো হয়েছে, তা আন্তর্জাতিক আইনের সম্পূর্ণ লঙ্ঘন। আন্তর্জাতিক পানিসীমায় এ ধরনের তল্লাশি চালানোর কোনো অধিকার কারো নেই।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হামিদ আকসাভি অভিযোগ করে বলেছেন, তাদের বাণিজ্যিক জাহাজটি গ্রিসের পেলোপোনিস উপত্যকার কাছে পৌঁছালে জার্মান নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ হামবুর্গ থেকে সেদেশের নৌসেনারা রোজেলিনে অবৈধভাবে ঢুকে পড়ে। এর পর অস্ত্রের মুখে জাহাজের ক্যাপ্টেন ও সব নাবিককে বন্দি করে রাখা হয়।

german soldiers searching turkey ship innerতুর্কি জাহাজে জার্মান নৌসেনাদের অভিযান, অস্ত্রের মুখে জিম্মি তুর্কি ক্যাপ্টেন ও নাবিক

তিনি আরো বলেন, বিষয়টি নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে অভিযোগ জানায় আঙ্কারা। এর পরই জার্মানির নৌসেনারা তল্লাশি অভিযান অসমাপ্ত রেখেই রোজেলিন ছেড়ে চলে যায়।

এ বিষয়ে জার্মানির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে, ভূমধ্যসাগরে টহল দেওয়ার উদ্দেশ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে যে আইরিনি বাহিনী নিযুক্ত করা হয়েছে, তার অংশ হিসেবেই দেশটির নৌবাহিনী জাহাজটি তল্লাশি করছিল।

প্রসঙ্গত, যুদ্ধ-কবলিত আফ্রিকার দেশ লিবিয়ায় যাতে অবৈধ অস্ত্রের চালান ঢুকতে না পারে, সেজন্য ইইউ এই আইরিনি বাহিনী গঠন করেছে বলে জানানো হয়েছে।

জার্মান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আরো জানিয়েছে, তুরস্কের ওই জাহাজটিতে অস্ত্র আছে- এমন সন্দেহ করেই সেটিতে তল্লাশি চালাতে যায় তাদের নৌসেনারা। কিন্তু তুর্কি জাহাজটির নাবিকদের বাধার মুখে তল্লাশি অসমাপ্ত রেখেই তাদের চলে যেতে হয়।

তুরস্কের নিরাপত্তা সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোজেলিন জাহাজটি খাদ্যসামগ্রী ও রঙ নিয়ে লিবিয়ায় যাচ্ছিল।

sheikh mujib 2020