advertisement
আপনি দেখছেন

আন্তর্জাতিক মুদ্রাপাচার বিরোধী পর্যবেক্ষণ সংস্থা ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স, এফএটিএফের ধূসর তালিকা থেকে নিজেদের নাম মোচনে জোর দিচ্ছে পাকিস্তান। এরই ধারাবাহিকতায় সংস্থাটির বেঁধে দেয়া ২৭টি কর্মপরিকল্পনার মধ্যে বাকি তিনটিও বাস্তবায়ন করে এ বিষয়ক কমপ্লায়েন্স রিপোর্ট এফটিএফের কাছে জমা দিয়েছে দেশটি। সম্প্রতি নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাকিস্তানের কয়েকজন কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন।

fatf and pakista flag

দ্য নিউজকে পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, ‘মোট ২৭টি কর্মপরিকল্পনার মধ্যে যে তিনটি বাস্তবায়ন বাকি ছিলো তা সম্পন্ন করা হয়েছে। এ বিষয়ক কমপ্লায়েন্স প্রগ্রেস রিপোর্ট জমা দেয়া হয়েছে। পাকিস্তানের অগ্রগতি নিয়ে মুখোমুখি বৈঠকের সময় নির্ধারণ করা হয়েছিলো ঈদের ছুটির সময়ে। কিন্তু আমরা এই সময়সূচি পরিবর্তনের অনুরোধ করেছিলাম এবং ঈদের ছুটির পর বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে।’

মুদ্রা পাচার প্রতিরোধে ব্যর্থতা এবং সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের বিরুদ্ধে আইন প্রয়োগে উদাসীনতার কারণে ২০১৮ সালের জুনে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকায় (গ্রে লিস্ট) অন্তর্ভুক্ত করে এফএটিএফ। সেসময় বলা হয় এ তালিকা থেকে বের হতে হলে এক বছরের মধ্যে দেশটিকে ২৭ কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে।

করোনা মহামারির কারণে পাকিস্তানের জন্য নির্ধারিত সীমা বর্ধিত করা হয়েছিলো এবং আগামী মাসেই দেশটির জন্য নির্ধারিত নতুন সময়ও শেষ হবে। অবশ্য এরইমধ্যে পাকিস্তান ২৪টি কর্মপরিকল্পনায় বেশ অগ্রগতি করেছে এবং বাকি থাকা তিনটি কর্মপরিকল্পনাও সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। জুনে এফটিএফের আসন্ন বৈঠকে পর্যালোচনার জন্য এ বিষয়ক কমপ্লায়েন্স রিপোর্ট জমা দিয়েছে ইসলামাবাদ।

পাকিস্তানের পক্ষ থেকে দেয়া আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় জানা গিয়েছে, সাবেক শিল্প ও উৎপাদনমন্ত্রী এবং বর্তমান জ্বালানী বিষয়ক মন্ত্রী হাম্মাদ আজহার মুদ্রা পাচার বিরোধি সংগঠন ন্যাশনাল কোঅর্ডিনেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘ ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের কর্মপরিকল্পনা এফএটিএফ এবং এশিয়ান প্যাসিফিকের নির্ধারিত মানদন্ড ও সুরক্ষা পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়নে পাকিস্তান সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’

বিগত কয়েক বছরে পাকিস্তান উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সম্পন্ন করলেও অর্থনীতি, জাতীয় এবং উপ-জাতীয় ব্যবস্থার বিভিন্ন ক্ষেত্রে এফএটিএফ/এপিজির মূলধারার জন্য দেশটিকে আরো কাজ করতে হবে। পাকিস্তানকে যখন থেকেই ধূসর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে তখন থেকেই দেশটির অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করছে এফএটিএফ। সেসময়ই মুদ্রাপাচার ও সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন প্রতিরোধে কাজ কাজ করতে পাকিস্তানের শীর্ষ পর্যায়ের রাজনৈতিক পক্ষ থেকে প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিলো। নির্ধারিত কর্মপরিকল্পনায় পাকিস্তানের অগ্রগতি নজরে রেখেছে এফএটিএফ। সমস্ত কর্মপরিকল্পনার সময়সীমা শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই জুনের আগেই এসব কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে পাকিস্তানকে তাগিদ দিয়েছে এফএটিএফ।

সূত্র: ইকোনমিক টাইমস