advertisement
আপনি দেখছেন

জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদে টানা দ্বিতীয় দিন ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে ফিলিস্তিনিদের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে আরও শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন বলে খবর দিয়েছে আল-জাজিরা। শনিবার (৮ মে) পবিত্র লাইলাতুল ক্বদরের রাতে এ সংঘর্ষ হয়।

al aksa h

এর আগের দিনও জুমাতুল বিদায় ফিলিস্তিনিরা আল-আকসায় জড়ো হয়ে পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনের প্রতিবাদ জানান। এ প্রতিবাদে ইসরায়েলি বাহিনী ও কসতি স্থাপনকারীরা হামলা চালালে অন্তত ২০৫ ফিলিস্তিনি আহত হন। এদের মধ্যে গুরুতর ৮৮ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে জানায় ফিলিস্তিন রেড ক্রিসেন্ট।

শনিবার লাইলাতুল ক্বদরে ফিলিস্তিনিরা আল-আকসায় জড়ো হয়ে ফের বসতি স্থাপনের প্রতিবাদ জানান। ইসরায়েলি বাহিনী জলকামান, টিয়ারশেল, সাউন্ড গ্রেনেড ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে তাদের সরানোর চেষ্টা করে। এ সময় সংঘর্ষে অন্তত ৮০ ফিলিস্তিনি আহত হয়। অনেককে আটক করা হয়। আহতদের মধ্যে এক বছরের এক শিশুসহ গুরুতর ১৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানায় ফিলিস্তিন রেড ক্রিসেন্ট। ইসরায়েলি পুলিশ দাবি করেছে, সংঘর্ষে তাদের এক কর্মকর্তা আহত হয়েছেন।

al aksa 2

ওল্ডসিটি জেরুজালেমের দামেস্ক গেটে বিক্ষোভকারী মাহমুদ আল-মারবুয়া রয়টার্সকে বলেন, ‘তারা (ইসরায়েলি বাহিনী) চায় না আমরা আল-আকসায় নামাজ আদায় করি। এখানে প্রত্যেক দিন লড়াই-সংঘর্ষ হচ্ছে। প্রত্যেক দিন তারা সমস্যা তৈরি করছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘তরুণদের লক্ষ্য করে ইসরায়েলি বাহিনী গুলি করছে। এমনভাবে গুলি চালাচ্ছে যে, প্রাণে বেঁচে থাকাই দায়।’

তুরস্ক, সৌদি আরব, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমানসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন রাষ্ট্র ইসারায়েলি হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এক টুইটে বলেন, ‘আমাদের প্রথম কিবলা আল-আকসায় ফিলিস্তিদের ওপর ইসরায়েলি ঘৃণ্য আক্রমণের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। প্রত্যেক রমজানেই তারা ন্যাক্কারজনক এ ঘটনা ঘটাচ্ছে।’

turkey 1

এ হামলার প্রতিবাদে ইস্তাম্বুলে ইসরায়েলি দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করেছে জনতা। তারা তুরস্ক ও ফিলিস্তিনের পতাকা হাতে পশ্চিম তীরে অবৈধ বসতি স্থাপন ও আল-আকসায় হামলার প্রতিবাদ জানান। জনতা স্লোগান দেন, ফিলিস্তিনিা এক নন। যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনা নিরসনে দুইপক্ষকে সংযত আচরণের আহ্বান জানিয়েছে।