advertisement
আপনি দেখছেন

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় এক সামরিক কমান্ডার পরিষ্কারভাবে স্বীকার করেছেন, আফগানিস্তান নিয়ন্ত্রণের লড়াইয়ে জিতেছে তালেবান। তবে তিনি বলেন, এটা পূর্বনির্ধারিত কোনো উপসংহার নয়। আর এ খেলার শেষটা এখনো লেখা হয়নি।

taleban 1মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন এবং জয়েন্ট চিফ অব স্টাফের চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মিলি

আফগানিস্তান থেকে ৩১ আগস্টের মধ্যে মার্কিন সেনা সরিয়ে নেয়ার ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে মার্কিন জয়েন্ট চিফ অব স্টাফের চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মিলি এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনের বক্তব্য দানকালে এ মন্তব্য করা হয়।

মার্ক মিলি বলেন, আফগানিস্তানের ৪১৯টি জেলার মধ্যে ২১২টি এখন তালেবানের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে ৩৪টি প্রাদেশিক রাজধানীর কোনোটিতে তাদের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। অবশ্য রাজধানী কাবুলসহ বিভিন্ন প্রাদেশিক রাজধানী দখলের জন্য তালেবান নিজেদের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

taleban 2ফিরে যাচ্ছে মার্কিন সেনারা

মিলি দাবি করেন, তালেবানের এসব বিজয়কাহিনির অধিকাংশই অবশ্য তালেবান কর্তৃক প্রচারিত হচ্ছে। তবে তিনি এ-ও স্বীকার করেন যে, তালেবান এখন ভালো অবস্থানে রয়েছে, যার ফলে তারা কোথাও কোথাও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ নিতে পারছে আবার বিভিন্ন ধরনের সমঝোতা, আলোচনার দাবি জানাতে পারছে।

তিনি বলেন, ঈদের কারণে এ মুহূর্তে লড়াই কিছুটা কমে এসেছে। তবে ঈদের পরে তা আবার বাড়তে পারে। আমি মনে করি, এ খেলার শেষটা এখনো লিখা হয়নি।

মিলি দাবি করেন, গত ২০ বছরের প্রশিক্ষণে আফগানিস্তানের নিরাপত্তাবাহিনী যথেষ্ট প্রশিক্ষিত হয়েছে। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ত্রাসী হামলার পর মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান পৌঁছে। এরপর থেকেই তারা আফগানিস্তানের নিরাপত্তাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছিল।

মিলি ও অস্টিন বলেন, মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হলেও যুক্তরাষ্ট্র বরাবরের মতোই আফগান সরকার ও তাদের নিরাপত্তা বাহিনীকে পরামর্শ দিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এমনকি এক্ষেত্রে তারা তহবিল প্রদানও অব্যাহত রাখবে। আর কাবুল বিমানবন্দরসহ বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে নিরাপত্তা প্রদানের জন্য ছোট একটি মার্কিন সেনা দল কাবুলে অবস্থান করবে।

মিলি বলেন, মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি আফগান জনগণ, নিরাপত্তা বাহিনী এবং সরকারের ইচ্ছা এবং তাদের নেতৃত্বের জন্য এটি পরীক্ষা হিসেবে বিবেচিত হতে যাচ্ছে।