advertisement
আপনি দেখছেন

প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে পাকিস্তানের পূর্ব সীমান্তে মোতায়েন করা দেশটির বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিপদে রয়েছে। চীন থেকে কয়েক মিলিয়ন ডলারে কেনা প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এখন বেশকিছু প্রযুক্তিগত সমস্যায় জর্জরিত।

flag china pakistan

নিউজ ১৯-এ বলা হয়, রুশিড়ু ওয়াডুগে লিখেছেন- পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা চীনের তৈরি অস্ত্র ব্যবস্থার ক্রমাগত ত্রুটি নিয়ে ‘লাল পতাকা’ উত্তোলন করেছে। তবে সকল প্রতিকূলতায় ঘনিষ্ঠ বন্ধুর এ উদ্বেগে চীন খুবই মন্থরগতিতে সাড়া দিয়েছে।

কয়েক মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে কেনা চীনা নির্মিত পোর্টেবল এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম, আর্টিলারি রকেট সিস্টেম এবং পৃষ্ঠ-থেকে-শূন্যে ক্ষেপণাস্ত্র সিস্টেমগুলো প্রযুক্তিগত এবং অপারেশনগত সমস্যায় জর্জরিত। ফলে রকেট লাঞ্চার ও মিসাইলসহ কয়েকশ ম্যানপ্যাড অকার্যকর হয়ে পড়েছে।

flag china pakistan 2

চীনের তৈরি এফএন -১৬ ম্যানপ্যাডগুলো শত্রু হেলিকপ্টার এবং নিম্ন উচ্চতায় উড়ন্ত বিমান এবং মনুষ্যবিহীন বিমানবাহী যানকে আক্রমণের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। তবে এই সিস্টেমগুলোর বেশিরভাগ ত্রুটিযুক্ত এবং ভূপৃষ্ঠ থেকে আকাশে আক্রমণ ও সিগন্যালিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছে না। এগুলো ছাড়া ম্যানপ্যাডগুলো কার্যত অকার্যকর। নিউজ ১৯ এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৮৫০টিরও বেশি এই সিস্টেম অকার্যকর ঘোষণা করেছে সেনাকর্তৃপক্ষ।

এই সিস্টেমগুলো মেরামতে ভ্যালিয়ান্ট টেকনলোজিস নামে একটি মিত্র ফার্মকে নিয়োগ দিয়েছে উহান ইনফারেড কোম্পানি লিমিটেড। একই সমস্যাযুক্ত ৫০০টি কিউডব্লিউ১৮ ম্যানপ্যাডগুলো অনেক চড়া মূল্যে চীন থেকে কেনা হয়েছিল।

পকিস্তান সেনাবাহিনী চায়না প্রেসিশন মেশিনারি ইমপোর্ট-এক্সপোর্ট করপোরেশনকে (সিপিএমআইইসি) একটি বেস কন্ট্রোল ইউনিট এবং একটি প্রশিক্ষণ সিমুলেটরসহ কমপক্ষে ৪৭টি সিস্টেমের প্রতিস্থাপন করতে বলেছে।

চীনা কোম্পানির প্রতিনিধি বিশদ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরে সিদ্ধান্তে এসেছেন এই সিস্টেমগুলি মেরামতের অযোগ্য হওয়ায় তা প্রতিস্থাপন করতে হবে।

রুশিড়ু ওয়াডুগে জানিয়েছেন, এ জাতীয় অনেক অস্ত্র মেরামতের অযোগ্য অবস্থায় রয়েছে। সুতরাং, পাকিস্তানের বিমান নিরাপত্তা এবং সুরক্ষা অনেক বিপদে রয়েছে।

সূত্র: এএনআই