advertisement
আপনি দেখছেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। তাদের মধ্যে দু'দেশের সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে বাইডেন বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রেসিডেন্ট ঘানির পাশে আছেন বলে নিশ্চয়তা দিয়েছেন। আফগানের সহায়তায় ৩.৩ বিলিয়ন ডলারও দেবে দেশটি। এসব ডলারের বিরাট অংশ আফগানে যুদ্ধ পরিচালনায় ব্যয় হবে। টোলো নিউজের খবর।

joe biden and ashraf ghani

বাইডেন জানিয়েছেন, আফগানিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনীকে সহায়তা দিয়ে যাবে যুক্তরাষ্ট্র। অন্যদিকে ঘানি এক টুইটে শেয়ার করেছেন, আফগানিস্তানের সুরক্ষায় যুক্তরাষ্ট্র দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আফগানিস্তানের শান্তি ও নিরাপত্তার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে আলোচনায়। গত ২০ বছরে যুক্তরাষ্ট্র আফগানকে যে সহায়তা দিয়েছেন তা ধরে রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বাইডেন। বিশেষ করে আফগানের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তারা সরকারি বাহিনীকে সহায়তা অব্যাহত রাখবে।

এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ঘানি ও বাইডেনের মধ্যে কথা হয়েছে। দ্বিপক্ষীয় বন্ধন স্থায়ী রাখাতে তারা উভয়পক্ষ একমত হয়েছেন। বাইডেন আফগানে মানবিক সাহায়্য চালিয়ে যাওয়ার বিষয়টিতে জোর দিয়েছেন। তাছাড়া উন্নয়ন ও আফগান জনগণের পাশে দাঁড়াতে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন বাইডেন।

afghanistan army kabul

হোয়াইট হাউসের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আফগান যুদ্ধ পরিস্থিতি ও তালেবান নিয়ে উভয়পক্ষ একটা সমঝোতায় বিশ্বাস করে।

বিবৃতিতে জানানো হয়, ২০২২ সালে আফগানিস্তানের সহায়তায় ৩.৩ বিলিয়ন অর্থছাড়ের অনুরোধ করা হয়েছে কংগ্রেসে। এসব অর্থের ১ বিলিয়ন ব্যয় হবে আফগান এয়ার ফোর্স ও যুদ্ধ পরিচালনায়। ১ বিলিয়ন ব্যয় হবে জ্বালানি ও অস্ত্র ক্রয়ে এবং বাকি অর্থ ব্যয় হবে আফগান সরকারি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের বেতন হিসেবে।

চলমান যুদ্ধে আফগান জনগণের অপূরণীয় ক্ষতি, মৃত্যু, নারী-শিশুদের বিপর্যয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন বাইডেন। দু'জনের আলোচনায় আফগানিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনীকে কিভাবে নতুন করে সাজানো হচ্ছে সেসব বিষয় উঠে এসেছে। পরিকল্পনা মতে, শহর, হাইওয়ে, কৌশলগত এলাকায় নতুন করে নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করবে ঘানি সরকার।