advertisement
আপনি দেখছেন

আফগানিস্তানে পুনর্গঠন করা হচ্ছে সেনাবাহিনী। বর্তমান তালেবান সরকারের সেনাবাহিনীতে আগের সরকারের সেনা সদস্যরাও অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন বলে ঘোষণা এসেছে। তালেবান সরকারের সেনাবাহিনী প্রধান কারী ফসিহউদ্দিন বলছেন, একটি নিয়মিত ও শক্তিশালী সেনাবাহিনী গঠনে কাজ করছে সরকার।

fasihuddin taliban army chiefতালেবান সরকারের সেনাবাহিনী প্রধান কারী ফসিহউদ্দিন (পাগড়ি মাথায়)

এ ব্যাপারে একটি পরিকল্পনা শিগগির চূড়ান্ত করা হবে। দ্রুতই একটি নতুন সেনাবাহিনী দাঁড় করানো হবে। সাবেক সরকারি সেনা সদস্যদের স্বজনরা উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন- এমন অবস্থার মধ্যেই তালেবান সেনাপ্রধান বক্তব্য দিলেন।

সেনাপ্রধান বলছেন, আফগানিস্তানে নিয়মিত ও একটি শক্তিশালী সেনাবাহিনী থাকতে হবে। দেশকে রক্ষা করতে হলে এটি অত্যন্ত জরুরি। টোলো নিউজের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে সেনাপ্রধান ফসিহউদ্দিন বলেন, আগের সেনাবাহিনীর সৈনিক ও কর্মকর্তারা নতুন সেনাবাহিনীতে যুক্ত হবেন।

afgan talibanতালেবান যোদ্ধা

তালেবান দেশের ভেতর ও বাইরের যেকোনো নিরাপত্তা হুমকির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে চায়। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, যারা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সেনা সদস্য তারা আফগানিস্তানের জন্য নতুন সেনাবাহিনীতে কাজ করবে।

খবরে বলা হচ্ছে, তালেবান বারবার বলছে আগের সেনা সদস্যদের নতুন সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। আবার সাবেক পুলিশ সদস্যদেরও নতুন পুলিশ বাহিনীতে নেওয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে তালেবান। সাবেক সরকারি সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তারাও নতুন করে দায়িত্ব পালনে আগ্রহী বলে জানিয়ে আসছেন।

সাবেক সেনা কর্মকর্তাদের একটা বিরাট অংশ তালবানের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তাদের বক্তব্য, তালেবানের উচিত দক্ষতাসম্পন্ন সেনা সদস্যদের কাজে লাগানো। সাবেক সেনা কর্মকর্তা শাকুরুল্লাহ সুলতানি বলছেন, তালেবানের উচিত শিগগির একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া। কারণ তিন লাখ সেনা সদস্যের ভাগ্য তাদের হাতে ঝুলে আছে।

কাবুলের অধিবাসী ওয়াসিকুল্লাহ আজিম বলছেন, শক্তিশালী সেনাবাহিনী গঠন করতে হলে অবশ্যই সাবেক সেনা কর্মকর্তাদের গ্রহণ করতে হবে এবং তাদের পরামর্শ শুনতে হবে।