advertisement
আপনি দেখছেন

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় পৌঁছেছে আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবানের একটি প্রতিনিধি দল। নতুন সরকারের সমর্থন ও স্বীকৃতির জন্য কূটনৈতিক প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে এই সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আল জাজিরা।

press confarence muttakiতালেবান সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি

আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আবদুল কাহার বালখি আজ বৃহস্পতিবার টুইটারে বলেছেন, ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি এবং অন্যান্য মন্ত্রীরা তুরস্কের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করবেন। বৈঠকে আফগানিস্তানে মানবিক সহায়তা, মাইগ্রেশন, বিমান পরিবহন এবং বাণিজ্যসহ পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হবে।

বালখি বলেন, তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু তালেবানকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। আমাদের আলোচনার পর তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অন্যান্য কয়েকটি দেশের মন্ত্রিরা আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল সফর করার পরিকল্পনা করছেন। ওই সফরে তালেবান সরকারের সঙ্গে আলোচনা হবে।

mevlut kavusoglu turkey foreign ministerতুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু

খবরে বলা হচ্ছে, তালেবান কাতারে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে আলোচনা করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় এই তুরস্ক সফর। কাতারের ওই বৈঠকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের প্রতি তালেবানের আহ্বান ছিল, তারা যেন আফগানিস্তানকে বিচ্ছিন্ন না করেন। আর্থিক নিষেধাজ্ঞার অবসানও কামনা করে তালেবান প্রতিনিধি দল।

পশ্চিমা দেশগুলো কাবুল থেকে দূতাবাস গুটিয়ে নিলেও ন্যাটো সদস্য তুরস্ক দূতাবাস চালু রেখেছে। তুরস্ক তালেবানের প্রতি ওইসব দেশগুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ততা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে আসছে। তুরস্কের বক্তব্য ছিল, তারা তালেবানদের সাথে পুরোপুরি কাজ করবে যদি তালেবান আরও বেশি অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রশাসন গঠন করে।

তুরস্ক বরাবরাই তালেবানকে সহায়তা করে আসছে। পশ্চিমা দেশগুলোর বৈরি অবস্থানের বিপরীতে তালেবানকে সহায়তা অব্যাহত রেখেছে দেশটি। কাবুল বিমানবন্দর পরিচালনা ও আন্তর্জাতিক ভ্রমণের জন্য এটি পুনরায় চালু করতে তুরস্ক কাতারের সাথেও কাজ করছে।