advertisement
আপনি পড়ছেন

যুক্তরাজ্য এবং অন্যান্য দেশ দক্ষিণ আফ্রিকার উপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়ে গেছে দেশটির পর্যটন শিল্প। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়াও দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ভ্রমণ নিষিদ্ধ করা দেশগুলোর তালিকায় যুক্ত হয়েছে। তবে পরিস্থিতি গুরুতর হওয়া সত্ত্বেও অনেকে এখনও মনে করছেন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা অপ্রয়োজনীয়। ভয়েস অব নাইজেরিয়া।

south africa tourism industry in chaos

দক্ষিণ আফ্রিকা সফররত ব্রিটিশ পর্যটক ডেভিড গুড বলছেন, আমি মনে করি কোভিড একটি খুব গুরুতর জিনিস। কিন্তু সবসময় আমরা নতুন নতুন ভ্যারিয়েন্টের মধ্য দিয়েই যাচ্ছি। সুতরাং আমাদের আগের মতো লকডাউন করা দরকার বলে আমি মনে করি না। আমাদের বিকল্প সমাধান হাতে নেওয়া উচিত।

দক্ষিণ আফ্রিকার পর্যটন শিল্প জিডিপির প্রায় ৩% প্রতিনিধিত্ব করে। কোভিডের কারণে দেশটিতে নতুন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা একটি বড় সমস্যা সৃষ্টি করেছে। পর্যটন শিল্পে ধস নামতে পারে। বিশেষ করে এই সময়ে দেশটি অর্থনৈতিক সংকট পুনরুদ্ধারে লড়াই করছে। আর ঠিক এই সময়েই নতুন ভ্যারিয়েন্টের আঘাত এল।

south africa tourism industry in chaos 01

কেপ টাউনের মেয়র জিওর্ডিন হিল লুইস বলছেন, করোনার আঘাত কেপটাউনের জন্য অত্যন্ত মারাত্মক। এখানকার হাজার হাজার পরিবার পর্যটন শিল্পের উপর নির্ভরশীল। পর্যটন ব্যবসায়ীরা যারা এই ব্যবসায়ের ওপর পেট চালায়, তারা বার বার মিনতি করছে। কারণ তারা পুরো ডিসেম্বর মাসের বুক হওয়া হোটেল-মোটেল নিয়ে আবার অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছেন। হোটেল মালিকদের মাথায় হাত। পর্যটকরা বুকিং বাতিল করেছে। এটি সত্যিই খারাপ খবর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিরুদ্ধে সতর্ক করে বলেছে, করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্টের প্রভাব কেমন মারাত্মক হতে পারে তা বুঝতে সময় লাগবে। অন্তত কয়েক সপ্তাহ লাগবে।