advertisement
আপনি পড়ছেন

ইরানের নাতাঞ্জে পারমাণবিক চুল্লির কাছে একটি ক্ষেপণাস্ত্র ফেলা হয়েছে। তবে ক্ষেপণাস্ত্রটি ইরান নিজেই পরীক্ষামূলক হিসেবে নিক্ষেপ এবং তা ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে ভিয়েনায় চলমান আন্তর্জাতিক আলোচনার মধ্যে গতকাল শনিবার এই পরীক্ষা চালাল ইরান। ফ্লোরিডা ভিত্তিক ইউপিই নিউজ এ খবর দিয়েছে।

iran natanz uranium enrichment facilityইরানের নাতাঞ্জে পারমাণবিক চুল্লি

ইরানের সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র জেনারেল শাহিন তাকিখানি দেশটির রাষ্ট্রীয় মিডিয়া পরিষেবা ইসলামিক রিপাবলিক অফ ইরান ব্রডকাস্টিংকে বলেছেন, ক্ষেপণাস্ত্রটি নাতাঞ্জের উপর প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার দ্রুত প্রতিক্রিয়া পরীক্ষা করার জন্য নিক্ষেপ করা হয়েছিল। এই ধরনের অনুশীলন সম্পূর্ণ নিরাপদ পরিবেশে করা হয়। চিন্তার কোনো কারণ নেই।

ইসলামী বিপ্লবী গার্ড কর্পস পরিচালিত ইরানের আধা-সরকারি ফারস নিউজ এজেন্সি জানাচ্ছে, বাসিন্দারা একটি ‘ভয়ানক শব্দ’ শুনেছেন এবং আকাশে তীব্র আলো দেখতে পেয়েছেন। নাতাঞ্জের গভর্নর টুইটে বলেছেন, ঘটনার সঠিক বিবরণ এখনও জানা যায়নি। গুজব ছড়িয়েছে যে, একটি অজ্ঞাত ড্রোন নাতাঞ্জের ওপর ধ্বংস হয়েছে।

নাতাঞ্জ শহরটি ছোট্ট শহর। এখানে ইরানের একটি ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ প্ল্যান্ট রয়েছে। প্ল্যান্টটি শহর থেকে প্রায় ২০ মাইল দূরে অবস্থিত। শহরের জনসংখ্যা প্রায় ১২ হাজার থেকে ১৪ হাজার। ২০১৫ সালে করা পারমাণবিক চুক্তি ‘জয়েন্ট কম্প্রিহেনসিভ প্ল্যান অফ অ্যাকশনে (জেসিপিওএ) ফিরে আসার ব্যাপারে ভিয়েনায় আলোচনার মধ্যেই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাটি চালাল ইরান।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। পরে ইরানের ওপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র।

গার্ডিয়ানে প্রকাশিত খবর অনুয়ায়ী, ইরান গত বছর বলেছিল, দেশটির জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার পর তারা আর পারমাণবিক পরিকল্পনা মেনে চলবে না। তবে অঙ্গীকার করেছিল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা প্রতাহার করলে জেসিপিওএ পুনর্বহাল করা সম্ভব।

শুক্রবার, ৩ নভেম্বর, আলোচনার ফলাফল শূন্য বলে প্রতীয়মান হওয়ার পরে চুক্তি পুনর্বহালের ব্যাপারে ইরান-যুক্তরাষ্ট্র উভয় দেশই হতাশা প্রকাশ করে। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইদ খাতিবজাদেহ তার প্রতিপক্ষ ইসরায়েলকে সর্বশেষ ভিয়েনা আলোচনায় হস্তক্ষেপ করার জন্য সমালোচনা করেছেন। তার আগে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট আলোচনা বন্ধ করার আহ্বান জানান।