advertisement
আপনি পড়ছেন

সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসনের সঙ্গে গতকাল শনিবার ফোনে কথা বলেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান। কথোপকথনে এরদোয়ান সন্ত্রাসী গোষ্ঠী পিকেকে ও এর সিরিয়ান শাখা ওয়াইপিজি নিয়ে আঙ্কারার মনোভাব পুনর্ব্যক্ত করেন। তার দাবি, অবশ্যই সন্ত্রাসবাদ নিয়ে স্টকহোমকে স্পষ্ট সিদ্ধান্তে আসতে হবে। একই বিষয়ে ন্যাটো মহাসচিবের সাথেও কথা বলেছেন এরদোয়ান। টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

erdogan 1এখনও অনড় এরদোয়ান

তুরস্কের যোগাযোগ অধিদপ্তরের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেছেন, তুরস্ক সব বিষয়ে বাধ্যতামূলক অঙ্গীকার, সুনির্দিষ্ট এবং সুস্পষ্ট বাস্তবায়ন চায়। আঙ্কারা স্টকহোমকে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পাশাপাশি তুর্কি প্রতিরক্ষা শিল্পের ওপর আইনি বিধিনিষেধ প্রত্যাহারের আশা করে। এরদোয়ান অ্যান্ডারসনকে বলেছেন, সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর নেতাদের তুরস্কে প্রত্যর্পণ করতে হবে।

ন্যাটো মহাসচিবের সঙ্গে ফোনালাপ: এরদোয়ান একই দিন ন্যাটো প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গের সাথেও আলোচনা করেছেন। এ সময় দুই নর্ডিক দেশ সুইডেন ও ফিনল্যান্ডকে অবশ্যই তুরস্কের প্রতিরক্ষা শিল্প রপ্তানির বিরুদ্ধে কার্যকর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দাবি করেন এরদোয়ান। ভবিষ্যতে তারা এমন কোনো পদক্ষেপ নেবে না তারও নিশ্চিত চায় আঙ্কারা।

স্টলটেনবার্গ টুইটারে বলেছেন, টার্কিশ প্রেসিডেন্টের সাথে ভালো কথোপকথন হয়েছে। আমরা আগামী সপ্তাহে ব্রাসেলস ও মাদ্রিদে আলোচনা চালিয়ে যেতে সম্মত হয়েছি।

ন্যাটোর সদস্য পদ পেতে আবেদন করেছে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড। কিন্তু তাতে তুরস্ক বাগড়া দিয়ে বসেছে। দেশটির দাবি, সন্ত্রাসী গোষ্ঠী পিকেকের প্রতি তাদের সমর্থন রয়েছে। তুরস্ক এটি বন্ধ চায়। এজন্য চাপের মুখে রয়েছে দেশ দুটি। আঙ্কারার বক্তব্য, ন্যাটো একটি সামরিক নিরাপত্তা জোট। ওই দুদেশকে অবশ্যই সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে স্পষ্ট অবস্থান নিতে হবে।

তুরস্কের বিরুদ্ধে ৩৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে নানা সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে আসছে কুর্দিস্তান ওয়ার্কাস পার্টি বা পিকেকে। দলটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের তালিকায় সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত। মহিলা, শিশু এবং শিশুসহ ৪০ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী কুর্দি সংগঠনটি। ওয়াইপিজি হল পিকেকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সিরিয়ান শাখা।