advertisement
আপনি পড়ছেন

গাইবান্ধায় হামলার শিকার সাঁওতালরা অবশেষে প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো ত্রাণ গ্রহণ করেছে। জেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, বুধবার বেলা দেড়টার দিকে সাঁওতাল পাড়ায় ত্রাণ নিয়ে যাওয়া হয়।

santal relief

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের বড়জয়পুর গ্রামে ত্রাণ সহায়তা নিয়ে যান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফাতেমাতুজ জোহরা। সহকারী কমিশনার (ভূমি) আহম্মদ আলী ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জহিরুল হক এ সময় উপস্থিত ছিলেন ।

গত সোমবার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান ত্রাণ বিতরণ করতে চাইলে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের লোকজন গ্রহণ করেননি। সাঁওতালদের অভিযোগ, ইউএনওর নির্দেশে গুলি করে তাদের হত্যা করা হয়েছে, সেই ইউএনওর মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ তাদের সঙ্গে উপহাস করার শামিল ।

আজ প্রতিটি সাঁওতাল পরিবারকে ২০ কেজি চাল, এক কেজি ডাল, এক লিটার তেল, এক কেজি লবণ, এক কেজি আলু ও দুটি কম্বল বিতরণ করা হয়। মোট ১৫০টি পরিবার এই ত্রাণ পাবে বলে জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে।

এ বিষয়ে সাহেবগঞ্জ-বাগদা ফার্ম ইক্ষু খামার ভূমি উদ্ধার সংহতি কমিটির সহ-সভাপতি ফিলিমিন বাসকে বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সরকারের লোকজন আমাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করবে। এছাড়া হয়রানি না করার আশ্বাস পাওয়ার পর আমরা ত্রাণ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

উল্লেখ্য, গত ৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জের রংপুর চিনিকলের জমিতে আখ কাটার ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারীদের সঙ্গে সাঁওতালদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশসহ উভয় পক্ষের ২০ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে নয়জন তীরবিদ্ধ এবং চরণ সরেন, বিমিল কিছকু ও দ্বিজেন টুডু নামে তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়। এ সংঘর্ষে তিনজন সাঁওতাল নিহত হয়। ঘটনার পর ওই রাতে ৪২ জনের নাম উল্লেখসহ ৩০০ থেকে ৪০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি দেখিয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

আপনি আরও পড়তে পারেন

বাংলাদেশের দুই টাকার নোট ভারতে পাচার হয় কেন?

'সাঁওতালরা অবৈধভাবে ছিল, সরকার জমি নিয়ে অন্যায় করেনি'

পাকিস্তানের দাবিকে ভিত্তিহীন বললেন বাণিজ্যমন্ত্রী

ওবায়দুল কাদের: ফুল দিয়ে নেতাদের খুশি করার প্রয়োজন নেই

বিমানের সিটের নিচ থেকে ৯ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার