advertisement
আপনি দেখছেন

বনানীর ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি শাফাত আহমেদকে ধরতে তার বাসায় তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। তবে তাকে বাসায় পাওয়া যায়নি। ঘটনার প্রায় ৪০ দিন পর গত ৬ মে বনানী থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

shafat ahmed apon jwelers

৯ মে আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শাফাতের গুলশানের বাসায় তল্লাশি চালায় পুলিশ। গুলশান জোনের পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার আব্দুল আহাদ বলেন, 'আসামী ধরতে কাজ করছে পুলিশ। গুলশানের বাসায় শাফাতকে পাওয়া যায়নি। তাকে ধরতে ঢাকা ও সিলেটে তাঁর আত্মীয়স্বজনের বাসায় খোঁজ নেয়া হচ্ছে।'

বহুল আলোচিত এই মামলার আসামী ৫ জন। তবে এখন পর্যন্ত পুলিশ এই মামলার একজনকেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি। শাফাত ছাড়াও মামলার অন্য আসামী হলেন, নাঈম আশরাফ, সাদমান সাকিফ, শাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষী (নাম নেই)।

শাফাতের বাবা দিলদার আহমেদ, তিনি দেশের অন্যতম অলংকার শিল্পপ্রতিষ্ঠান আপন জুয়েলার্সের মালিক। শাফাত নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। সেখান থেকে ব্যবসা ব্যবস্থাপনায় স্নাতক পাস করেন। পারিবারিক ব্যবসা দিয়েই তার ক্যারিয়ার শুরু হয়েছে।

গত ২৮ মার্চ রাজধানীর বনানীস্থ 'দ্য রেইন ট্রি' হোটেলে সাফাত আহমেদ নামে এক বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে গিয়ে বন্ধুদের প্ররোচনায় ধর্ষণের শিকার হন দুই তরুণী। ঘটনার প্রায় ৪০ দিন পর গত শনিবার সন্ধ্যায় বনানী থানায় মামলা করেন ওই দুই তরুণী। মাললায় আসামী মোট ৫ জন, মামলা নং ৮।