advertisement
আপনি পড়ছেন

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কম্পিউটার সিস্টেমে যে দুর্বলতা রয়েছে তা পুরোপুরি সারাতে দু বছর বা তারও বেশি সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তারা। এছাড়া ব্যাংকের কম্পিউটার সিস্টেমে ম্যালওয়ার বা ক্ষতিকর সফটওয়ার ছিলো বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

bangladesh bank

বাংলাদেশ ব্যাংকের কম্পিউটার সিস্টেমে থাকা ম্যালওয়ার বা ক্ষতিকর সফটওয়ারগুলো একাউন্টের লেনদেনের ওপর নজর রাখছিল বলে জানিয়েছেন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা।

ওই ম্যালওয়ারগুলোর মাধ্যমে কম্পিউটার সিস্টেমে ঢুকে ব্যাংকের লেনদেন পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে পুরো টাকা হাতিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করেছিল হ্যাকাররা। তবে ম্যালওয়ারগুলোর কর্মপদ্ধতি সম্পর্কে এখনও কেউ কিছু বলতে পারছেন না। তাঁরা বলছেন, কোনো একটি ম্যালওয়ারের নমুনা পেলে সেগুলো ঠিক কীভাবে কাজ করছিলো সেটা তাঁরা জানতে পারবেন।

এদিকে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরির সাথে ব্যাংকের কেউ জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ এখনও পাওয়া যায় নি। নি। তবে ব্যাংকের কারও সহায়তা ছাড়া টাকা চুরি সম্ভব নয় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এজন্য ব্যাংক কর্মীদের ওপর নজরদারি করে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

 

আপনি আরও পড়তে পারেন

‘ম্যালওয়ার’-কে সন্দেহ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের!

চলে গেলেন দেশের শীর্ষ কবি রফিক আজাদ

রাজধানীতে বসানো হচ্ছে দশ হাজার ডাস্টবিন