advertisement
আপনি দেখছেন

সরকারের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়ার স্বাস্থের প্রতিবেদন দাখিল না করে সরকার ও চিকিৎসকরা আদালত অবমাননা করেছে। শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ৯০-এর ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্রঐক্য আয়োজিত ‘খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও তারেক রহমানের সাজা বাতিল এবং স্বৈরাচার পতন দিবস’ উপলক্ষে এক আলোচনাসভায় তিনি এ কথা বলেন।

fakhrul khaleda bail

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সরকার প্রধান বলেছেন যে, সব ঠিক আছে, কারাগারে খালেদা জিয়া রাজার হালতে আছেন। তিনি এ কথা বলার পর বিএসএমএমইউর উপাচার্য ও চিকিৎসকদের ঘাড়ে কয়টা মাথা আছে যে, তারা বলবেন খালেদা জিয়া ভালো নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য প্রতিবেদন চেয়েছিল আদালত। কিন্তু চিকিৎসকরা তা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। কারণ প্রধানমন্ত্রী আগের দিন বলে দিয়েছেন, ‘বেগম জিয়া খুব ভালো আছেন, সুস্থ আছেন।’ এমন বক্তব্য আদালতের ওপর হস্তক্ষেপ করার শামিল।

খালেদা জিয়া মারা যেতে পারেন আশঙ্কা করে তিনি বলেন, দেশনেত্রী অনেক বেশি অসুস্থ। ডাক্তারদের ভাষ্যমতে অতিদ্রুত উন্নত চিকিৎসা না করালে ওনাকে আর সুস্থ অবস্থায় পাওয়া যাবে না। এমনকি মৃত্যুও হতে পারে। তাই সরকারের উচিত অন্তত মানবিক কারণে হলেও বেগম জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা।

অ্যাটর্নি জেনারেলের সমালোচনা করে তিনি বলেন, দেশে বিচার বিভাগের এমন অবস্থা যে, কে কতটা সাহস রাখবেন তা বলা মুশকিল। আর অ্যাটর্নি সাহেব সবসময় সরকার ও তার দলের স্বার্থরক্ষার জন্য কাজ করে থাকেন। এতকিছুর পরও সুপ্রিমকোর্টের বিচার বিভাগ এই বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

আলোচনাসভায় আরো বক্তব্য রাখেন ডাকসুর সাবেক ভিপি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, সাবেক ছাত্রনেতা ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, ডাকসুর সাবেক এজিএস নাজিম উদ্দিন আলম প্রমুখ।