advertisement
আপনি দেখছেন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, প্রতিবেশী দেশ ভারত এমন কিছু করবে না যাতে তাদের দেশ এবং বাংলাদেশের জনগণের মনে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে 'একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান ও বাংলাদেশ শীর্ষক' এক আলোচনা সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

foreign minister momen 3

ভারত কর্তৃক বাংলাদেশকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি প্রদানের ৪৮তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে এই আলোচনা সভা আয়োজন করে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি।

ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, দেশের জনগনের প্রত্যাশা, প্রতিবেশী বন্ধু দেশ ভারত এমন কিছু করবে না, যাতে তাদের এবং বাংলাদেশের মানুষের মনে আতঙ্ক ও দুশ্চিন্তার সৃষ্টি হয়। পারস্পারিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের মাধ্যমে উভয় দেশ সামনে এগিয়ে যাবে এবং দুই দেশের জনগনের প্রত্যাশা পূরণ করবে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ভারতের আসাম রাজ্যে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসির কাজ শেষ হয়েছে। এরপর থেকে এই তালিকা থেকে বাদ পড়া সেখানকার লোকজন সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করার চেষ্টা করছে। যদিও ঢাকা বরাবরই এনআরসিকে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে উল্লেখ করে আসছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং দিক নির্দেশনায় ভারত ও বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক অতীতের তুলনায় আরো দৃঢ় হয়েছে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, উভয় দেশের একে অন্যের প্রতি বিশ্বাস ও আস্থা এখন অনেক বেশি। তাই পারস্পরিক সহযোগিতা ও উন্নয়নে নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। তাছাড়া দুই দেশ অভিন্ন ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য-সংস্কৃতিতে আবদ্ধ।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে সোনালী অধ্যায় বলে আখ্যায়িত করেছেন উল্লেখ করে আব্দুল মোমেন আরো বলেন, আগামীতে দুই দেশের সৌহার্দ্যপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরো গভীরতর হবে।