advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 21 মিনিট আগে

যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ড কার্যকর হওয়া কাদের মোল্লাকে দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকায় ‘শহীদ’ হিসেবে উল্লেখ করার ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছিলেন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল জিটিভির কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এডিটর অঞ্জন রায়। এর পর গতকাল শুক্রবার বিকেলে পত্রিকাটির অফিসে হামলা চালায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ব্যানারে একটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সেইসঙ্গে সম্পাদক আবুল আসাদকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

anjon ray gtv

এর পর থেকে অঞ্জন রায়ের নানা সমালোচনা ও তাকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। এ অবস্থায় পাঁচজনকে হুমকি মনে করছেন তিনি। বিষয়টি উল্লেখ করে নিজের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডিও করেছেন তিনি। শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) রমনা থানায় তিনি এই ডায়েরি করেন।

সাধারণ ডায়েরিতে তিনি উল্লেখ করেন, ‘গত ১২ ডিসেম্বর আমার ব্যক্তিগত ভেরিফায়েড ফেসবুক আইডি থেকে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কাদের মোল্লাকে দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকায় শহীদ হিসেবে উল্লেখ করার প্রতিবাদ জানিয়ে একটি পোস্ট দেই। এরপর থেকে জামায়াত ও ছাত্র শিবিরের কর্মীসহ কিছু মানুষ আমাকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ও সরাসরি হুমকি দিয়ে চলেছে। এই পরিস্থিতিতে আমি নিম্নলিখিত ব্যক্তিদের হুমকির কারণ মনে করছি। তারা হচ্ছেন- দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদক আবুল আসাদ, জামায়াত নেতা ড. শফিকুর রহমান ও মকবুল আহমদ এবং ছাত্র শিবিরের সভাপতি মোবারক হোসেন ও সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে আমার ব্যক্তিগত নিরাপত্তা প্রত্যাশা করছি।’

এ ব্যাপারে অঞ্জন রায় একটি গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে আমার প্রতিবাদটুকু জানিয়েছি। এরপর থেকে আমাকে ছাড়াও আমার বাবা, দাদা, নানা থেকে শুরু করে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যাকে নিয়েও গালাগাল করে যাচ্ছে। আমি আইনে বিশ্বাস করি। আমি আশা করি, আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সেই সক্ষমতা আছে, তারা সাইবার অপরাধীদের ধরতে পারবে। আমি জিডিতে যে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করেছি, তারাই আসলে এই বিষয়গুলোকে নানাভাবে উস্কানোর কাজ করেছে। শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) বিকাল থেকেই শুরু হয়েছে আমাকে আক্রমণ করে লেখা। আমার কাছে মনে হয়েছে এটা পরিকল্পিত। আমি শঙ্কিতই বোধ করছি।’

রমনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিক অঞ্জন রায় নিরাপত্তা চেয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। সেটা নিয়ে আমরা কাজ শুরু করেছি। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অন্যদিকে, শনিবার বিকালে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে অঞ্জন রায় লিখেছেন, ‘এবার আইনের পথেই ফয়সালা হোক। সহ্যের সীমা অতিক্রম করেছে রাজাকারের ছানাপোনাদের গালাগাল।’

sheikh mujib 2020