advertisement
আপনি দেখছেন

রাজধানীর গোপীবাগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন এবং ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের সমর্থকদের মধ্যে ব্যপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। রোববার দুপুর ১টার দিকে আর কে মিশন রোডে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

al bnp clash in gopibag

এ সময় গণমাধ্যমকর্মীসহ দুই দলের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং দুই পক্ষকে দুই দিকে সরিয়ে দেয়।

বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, দলের মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন সংঘর্ষে আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন মতিঝিল এলাকায় নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শেষে গোপীবাগের বাসায় ফিরছিলেন। পথে আর কে মিশন রোডে পৌঁছালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা তাদের বাধা দিলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। প্রায় আধ ঘণ্টা ধরে চলা সংঘর্ষে কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলিও ছোড়া হয়। তবে ঠিক কোন পক্ষ থেকে ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

injured al bnp clash in gopibag

এদিকে দুপুর দেড়টার দিকে নিজ বাসায় তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলন করে ইশরাক বলেন, নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শেষে বাসায় ফেরার সময় তারা ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। এ সময় তার এক কর্মীকে আটকে রাখে হামলাকারীরা। পরে ওই কর্মীকে উদ্ধার করতে গেলে ফের হামলা চালানো হয়। এ সময় দলের নেতাকর্মীরা তাকে আড়াল করে সেখান থেকে নিয়ে আসে।

তিনি আরো বলেন, প্রতিপক্ষের ইট-পাটকেলের আঘাতে তার কয়েকজন কর্মীর মাথা ফেটে যায়। এমকি হামলাকারীদের হাতে অগ্নেয়াস্ত্রও দেখেছেন তিনি। জনগণ এই হামলার জবাব ভোটের মাধ্যমে দেবে।

এ বিষয়ে ওয়ারি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, বিএনপির মেয়রপ্রার্থী তার জনসংযোগের বিষয়ে পুলিশকে অবহিত করেননি। তারপরও সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় কয়েকজন নেতাকর্মী সামান্য আঘাত পেয়েছেন।