advertisement
আপনি দেখছেন

রোহিঙ্গাদের গণহত্যা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালত যে রায় হয়েছে তা নিরাপত্তা পরিষদে আলোচিত হলে তাতে ভেটো দেবে না চীন। আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং।

china will not veto in security council

তিনি বলেন, চীন চায় বাংলাদেশ ও মিয়ানমার দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান করুক এবং আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া নিশ্চিত হোক। এ প্রসঙ্গে অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থা যেভাবে বাংলাদেশকে সহায়তা করবে, চীনও সেভাবেই সহযোগিতা করবে।

সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে কূটনৈতিক রিপোর্টারদের সংগঠন ডিকাব’র এক মত বিনিময়ে সভায় লি জিমিং প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে তিনি রোহিঙ্গা ইস্যুর পাশাপাশি করোনা নভেল ভাইরাস নিয়েও নিজের মতামত তুলে ধরেন।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ভাইরাসটি নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র নানারকম বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। সত্যি কথা হচ্ছে চীন শুরু থেকেই ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণে রেখেছে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় চীনা প্রশাসন যোগ্যতার পরিচয় দিচ্ছে। উহান থেকেই ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব হয়েছে এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু ভাইরাসটি ঠিক কীভাবে মানবদেহে সংক্রমণ ঘটালো তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না তিনি।

সঙ্কটাপন্ন সময়ে পাশে থাকার জন্য বাংলদেশ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞ চীনা সরকার বলে জানান এ চীনা কূটনৈতিক।

চীনে বসবাসরত বাংলাদেশিদের প্রসঙ্গে লি জিমিং বলেন, তাদের ফিরিয়ে আনতে চীনের অনুমতির কোনো বিষয় নেই। বাংলাদেশের বিমানই সেখানে যেতে চাচ্ছে না, কারণ সেখানে বিমান নিয়ে গেলে অন্যদেশে তা যেতে পারবে না।

বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে চীনা রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, করোনাভাইরাসটি শুধু উহান শহরে ছড়িয়েছে। চীনের বাকি অঞ্চলে স্বাভাবিক কার্যক্রম চলছে। বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা যদি অন্য দেশে ব্যবসা স্থানান্তরের চিন্তা করে থাকে তাহলে তা হবে ব্যয়বহুল, অসম্ভব এবং অপ্রয়োজনীয়।