advertisement
আপনি দেখছেন

গুলশানের বারিধারায় লুঙ্গি পরিধান করে রিকশা চালানো নিষিদ্ধ। সেখানে কোনো রিকশাওয়ালা লুঙ্গি পড়তে পারেন না। ফলে ট্রাউজার বা প্যান্ট পরে রিকশা চালাতে হয়। বারিধারায় লুঙ্গি নিষিদ্ধ করা কেনো অবৈধ নয়, এ নিয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

why Lungi is prohibited asked high court

সম্প্রতি বারিধারায় যে লুঙ্গি ব্যবহার নিষিদ্ধ তা নিয়ে গণমাধ্যমে প্রচুর লেখালেখি হয়। এ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে স্বপ্রণোদিত হয়ে রুলটি জারি করেছেন বিচারপতি বিচারপিত এবিএম আলতাফ হোসেন ও বিচারপতি রেজাউল হক। দুই সপ্তাহের মধ্যে বারিধারা সোসাইটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, গুলশান অঞ্চলের পুলিশের ডিসি ও গুলশান থানার ওসিকে এই রুলের জবাব দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত ১৩ এপ্রিল কয়েকশ তরুণ-তরুণী বারিধারায় লুঙ্গি নিষিদ্ধের প্রতিবাদে 'লুঙ্গিমার্চ' করেন। তারা সাইকেলে চড়ে বারিধারা প্রদক্ষিণ করেন। ফলে লুঙ্গি নিষিদ্ধ করার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। সমালোচনার মুখে পড়ে বারিধারা সোসাইটি।

পোশাক-আশাক বাংলাদেশের সংবিধানে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলা নেই। কে কোন ধরনের পোশাক পরবে, এ নিয়েও কোনো নির্দেশনা দেয়া নেই। অর্থাৎ যার যে পোশাক ইচ্চে পরতে পারে। এ বিষয়ে কাউকে কিছু বলার অধিকার কারো নেই বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই লুঙ্গি নিষিদ্ধের প্রতিবাদ করেন।

এরপর দেশীয় মূলধারার মিডিয়াতেও বিষয়টি নিয়ে তুমুল প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়। এরপরই মূলত হাইকোর্টের দুই বিচারপতি স্বপ্রণোদিত হয়ে রুলটি জারি করেন। লুঙ্গি পরা নিষিদ্ধ করায় প্রচণ্ড গরমের মধ্যে বারিধারা এলাকার রিকশাওয়ালাদের প্রচণ্ড কষ্ট সহ্য করে রিকশা চালাতে হয়।

উল্লেখ, শুধু রিকশাওয়ালা নয়, বারিধারা এলাকায় প্রকাশ্যে লুঙ্গি পরে ঘোরাফেরা করাও নিষিদ্ধ। এই নিয়ম জারি করেছে সেখানকার স্থানীয় বাড়িওয়ালাদের সংগঠন বারিধারা সোসাইটি।

 

আপনি আরো পড়তে পারেন

মোবাইলেই টাকা পাঠাতে পারবেন প্রবাসীরা

ফেসবুকে ইমরান এইচ সরকারকে আনফ্রেন্ড করার আহ্বান জয়ের

কমতে শুরু করেছে তাপদাহ

শফিক রেহমানের রিমান্ড বাতিল করে মুক্তির দাবি ফখরুলের

sheikh mujib 2020