advertisement
আপনি দেখছেন

দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর সড়ক ও আকাশপথের মতো নদীপথেও যাত্রী পারাপার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অন্যান্য পরিবহনের মতো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে লঞ্চ, স্টিমার, ট্রলারসহ যাত্রী পারাপার করা সবকিছু। সেই নির্দেশ অমান্য করায় আজ বৃহস্পতিবার ভোরে ভোলার মেঘনা নদীতে ৩টি ট্রলার আটক করা হয়। ট্রলারগুলোতে অবস্থান নেওয়া ৫০০ যাত্রীকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

troller bhola

বুধবার গভীর রাতে ট্রলারগুলো লক্ষ্মীপুর জেলার মজু চৌধুরী ঘাট থেকে ভোলার ইলিশা জংশন ঘাটে রওয়ানা দেয়। গন্তব্যে পৌঁছার পর পুলিশ ট্রলারগুলো আটক করে। ট্রলারের দুই চালককে গ্রেপ্তার করা গেলেও বাকিরা পালিয়ে যায়। পাঁচশ’র অধিক যাত্রীকে ইতোমধ্যেই কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ রতন কুমার শীল বলেন, স্পষ্ট নির্দেশনার পরও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে এভাবে যাত্রী পারাপার করে বড় ধরনের অপরাধ। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার চিন্তা-ভাবনা চলছে। তবে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটও তাদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছেন।

দেশে গতকাল বুধবার পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২১৮ জন। এর মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন ২০ জন। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩০ জন।