advertisement
আপনি দেখছেন

সৌদি আরবের একদিন পর আমাদের দেশে ঈদ পালন করা হয়, এটাই নিয়ম। সাধারণত চাঁদও দেখা যায় সে অনুসারেই। গতকাল সৌদি আরবে শাওয়ালের নতুন চাঁদ দেখা যায়নি, অর্থাৎ আগামীকাল রোববার সেখানে এ বছরের ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হবে। সে হিসেবে আমাদের দেশে ঈদ হবে তার পরদিন অর্থাৎ সোমবার। কিন্তু যুগ যুগ ধরে দেশের প্রায় ১০০টি গ্রামে সৌদি আরবকে অনুসরণ করে ঈদ উদযাপন করা হয়ে থাকে।

eid in chandpur 1চাঁদপুরে ঈদের জামাত -ফাইল ছবি

দেশের দুটি অঞ্চলের প্রায় লাখ দুয়েক মানুষ এভাবে ঈদ উদযাপন করে। প্রথমটি হল দক্ষিণ চট্টগ্রাম। এই অঞ্চলের সাতকানিয়া, চন্দনাইশ, পটিয়া, লোহাগাড়া, বাঁশখালী ও আনোয়ারা উপজেলার ৬০ গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ। দ্বিতীয় জায়গাটি চাঁদপুর। এই জেলার হাজীগঞ্জ, ফরিদগঞ্জ, মতলব দক্ষিণ, শাহরাস্তি ও কচুয়া উপজেলার ৪০ গ্রামেও আগামীকাল ঈদ অনুষ্ঠিত হবে।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় সৌদি আরবের সঙ্গে তাল মিলিয়ে একদিন আগে ঈদ করার মূল উদ্যোক্তা মির্জাখীল দরবার শরীফ কর্তৃপক্ষ। দরবার শরীফের পীরজাদা মওলানা ড. মোহাম্মদ মকছুদুর রহমান বলেন, আমরা এমনটা করে আসছি ২৫০ বছর ধরে, সেক্ষেত্রে আমাদের কাছে শরীয়তের বিধান, যুক্তি ও ব্যাখ্যা রয়েছে। আবার যারা পরদিন ঈদ করে তাদের ব্যাপারে আমরা কোনোদিন কিছু বলিনি। তবে ইদানিং অনেক বিশেষজ্ঞই সারা পৃথিবীতে একদিনে ঈদ করার কথা বলে আসছেন।

ওদিকে চাঁদপুরেরও প্রায় এক লক্ষ মানুষও আগামীকাল ঈদ উদযাপন করবে। সেখানে এই রেওয়াজ ৯০ বছরের। বিষয়টা এতটাই নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, কেউ এ নিয়ে কারো সঙ্গে বসচায় লিপ্ত হন না।