advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাকালীন এই সময়েও দীর্ঘদিন ধরে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা ও বিভিন্ন অনিয়ম করে আসছিল রাজধানীর বেসরকারি রিজেন্ট হাসপাতাল। সেই প্রেক্ষিতে এবার অবিলম্বে হাসপাতালটির কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

regent hospital

আজ মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) ডা. মো. আমিনুল ইসলাম।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত মার্চ থেকে করোনা রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছিল রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেড (উত্তরা) এবং রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেড (মিরপুর) উভয় বেসরকারি হাসপাতালই। কিন্তু ৬ জুলাই র‌্যাবের অভিযানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে হাসপাতালটির দুটি শাখাতেই বিভিন্ন অনিয়ম ধরা পড়ে। যা বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়া এবং দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়।

প্রকাশিত সংবাদে দেখা যায়, করোনা রোগীদের কাছ থেকে অন্যায়ভাবে বিশাল অংকের টাকা আদায় করছে তারা। অনুমোদন না থাকা সত্ত্বেও আরটি-পিসিআর পরীক্ষার নামে ভুয়া রিপোর্ট দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে। তাগিদ প্রদান করা সত্ত্বেও লাইসেন্স নবায়ন না করাসহ আরো অনিয়ম ধরা পড়েছে। তাই দ্য মেডিক্যাল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিক অ্যান্ড ল্যাবরেটরিজ রেগুলেশন অর্ডিন্যান্স -১৯৮২ অনুযায়ী হাসপাতালের কার্যক্রম অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ দেয়া হলো।

bangladesh risky health department

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, বিভিন্ন অনিয়ম ধরা পড়ায় হাসপাতালটির কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়ে দেয়া হয়েছে। এর আগে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে শুধু সিলগালা করেছে। হাসপাতাল বন্ধের নির্দেশ দেয়ার এখতিয়ার শুধু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের।

এর আগে গতকাল সোমবার বিকেলে উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের ১৭ নম্বর রোডে অবস্থিতি রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এতে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম। অভিযানে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণার প্রমাণ পাওয়ায় হাসপাতালটির ব্যবস্থাপকসহ ৮ জনকে আটক করা হয়। তবে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মো. শাহেদ পলাতক রয়েছেন।

সেই প্রেক্ষিতে আজ মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত রিজেন্ট হাসপাতালের প্রধান কার্যালয়টি সিলগালা করে দেয়া হয়। পাশাপাশি চিকিৎসাধীন রোগীদের স্থানান্তরের পর মিরপুর ও উত্তরায় অবস্থিত হাসপাতালটির দুটি শাখাও সিলগালা করে দেয়া হয়।

sheikh mujib 2020