advertisement
আপনি দেখছেন

চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে আগামী ৩১ জুলাই বা ১ আগস্ট মুসলমানদের অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। সাধারণত প্রতি বছরই ঈদ উপলক্ষ্যে সাপ্তাহিক ছুটি ছাড়াও আগে পরে ছুটি যুক্ত হয়ে থাকে। তবে এ বছর বাড়তি ছুটি দেয়ার চিন্তা-ভাবনা নেই সরকারের।

dhaka new market empty

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, করোনাভাইরাসের কারণে ৩০ মে পর্যন্ত টানা ৬৬ দিন দেশব্যাপী সাধারণ ছুটি ছিল। তাছাড়া অফিস খুললেও ভাইরাসটির সংক্রমণ রোধে সীমিত পরিসরে কাজ করা হচ্ছে। এতে করে সবার মধ্যে এমনিতেই ছুটির আমেজ বিরাজ করছে। তাই ঈদের সময় বাড়তি ছুটির চিন্তা-ভাবনা নেই সরকারের।

এদিকে বাৎসরিক সরকারি ছুটির তালিকায় আগামী ১ আগস্ট ঈদুল আজহা ধরা হয়েছে। সে হিসেবে আগামী ৩১ জুলাই শুক্রবার, ১ আগস্ট শনিবার ও ২ আগস্ট রোববার ঈদের ছুটি থাকবে। এ দুদিনই আবার সাপ্তাহিক ছুটি। ৩১ জুলাই ঈদ হলেও ছুটির দুদিন চলে যাচ্ছে সাপ্তাহিক ছুটির মধ্যে।

সাধারণত প্রতি বছর ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার দিন সাধারণ ছুটি থাকে। সাথে ঈদের আগের ও পরের দিন সরকারের নির্বাহী আদেশে ছুটি থাকে। যদি এই তিন দিনের মধ্যে কোনো সাপ্তাহিক ছুুটি পড়ে তাহলে তা বাড়তি ছুটি হিসেবে গণ্য হয়। কিন্তু এ বছর সেটা আর হচ্ছে না।

bd govt logo

এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বিধি অনুবিভাগ) মো. লাইসুর রহমান বলেন, বাৎসরিক ছুটি ঘোষণা করার সময় এর মধ্যে ঈদের ছুটিও থাকে। তাই ঈদুল আজহার ছুটি যেভাবে ঘোষণা করা হয়েছিল, সেভাবেই থাকবে। কোনো বাড়তি ছুটি দেয়া হবে না।

তাছাড়া বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে যারা অসুস্থ, সন্তানসম্ভবা নারী, তাদের বিষয়ে তো আমরা নির্দেশনা দিচ্ছিই। তারা এমনিতেই অফিস করছেন না। এই মুহূর্তে সীমিত পরিসরে অফিস চলছে। তাই এবার ঈদের ছুটি নিয়ে বিশেষ চিন্তা-ভাবনা নেই। উল্টো সরকার চায় ছুটি আরো কমাতে। সে জন্য ঈদের সময় বাড়ি যেতেও নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। মানুষের চলাচল যত কমানো যাবে, ভাইরাসটি তত নিয়ন্ত্রণে থাকবে, যোগ করেন এই কর্মকর্তা।

sheikh mujib 2020