advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও করোনার মহামারির কারণে বিগত চার মাস ধরে বন্ধ রয়েছে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। করোনার সংক্রমণ রোধেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতির কোনো উন্নতি দেখা যায়নি। এ অবস্থায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আরেক দফা ছুটি বাড়তে পারে বলে জানা গেছে। আর সে রকম সিদ্ধান্ত হলে তা ঈদের আগেই জানিয়ে দেওয়া হবে। কারণ পূর্বের ঘোষণা অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৬ আগস্ট।

casul leave in educational institutionsশিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ছে আরেক দফা

সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় পুরো আগস্ট মাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকতে পারে। তবে পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হলেই খুলে দেওয়া হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে সেপ্টেম্বর নাগাদ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রত্যাশা করছে শিক্ষা বিভাগ। কারণ ইতোমধ্যে চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষা সময়মতো অনুষ্ঠিত হয়নি। এ ছাড়া আসছে নভেম্বরে পিইসি-ইবতেদায়ি এবং জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা রয়েছে।

শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, পুরো আগস্ট মাস বন্ধ রেখে সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাস শুরু করা হতে পারে- এমন চিন্তা থেকে প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছে। সেই হিসাবে সিলেবাস সংক্ষিপ্তকরণের কাজও শুরু হয়েছে। আর সিলেবাস সংশোধনে শিক্ষার্থীর বয়স ও শ্রেণি অনুযায়ী জ্ঞান অর্জনের বিষয়টি বিবেচনায় রাখা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে পিছিয়ে যেতে পারে নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য পিইসি-ইবতেদায়ি এবং জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা।

bd govt logoবাংলাদেশ সরকারের লোগো

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার মতো অবস্থা এখনো হয়নি। সেপ্টেম্বরের আগে নাও হতে পারে। সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে এমন চিন্তা থেকে আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি এবং সেই অনুযায়ী আমরা সিলেবাস ও কারিকুলাম পর্যালোচনা করছি। প্রয়োজনে কর্মদিবস বিবেচনায় সিলেবাস সংক্ষেপকরণ নিয়ে কাজ করছে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমি (নেপ)।

এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন বলেন, আমরা যে সিদ্ধান্তই নেই সেটা শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা মাথায় রেখে নেব। করোনাভাইরাসের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার চিন্তা নেই। তবে বন্ধের কারণে যে ক্ষতি হচ্ছে তা পুষিয়ে নিতে বেশ কয়েকটি পরিকল্পনা নিয়েছি আমরা। পরিস্থিতি অনুযায়ী সেসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান ছুটি শেষ হবে আগামী ৬ আগস্ট। ছুটি আরো বাড়ছে কি না- সেটা ঈদের আগেই জানানো হবে।

sheikh mujib 2020